জাহান্নামের আমল ততটুকু করুন যতটুকু শাস্তি আপনি সহ্য করতে পারবেন


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “যে ব্যক্তি এক জাররা পরিমাণ নেকী করবে, তার বদলা সে পাবে। আবার এক জাররা পরিমাণ পাপ কাজ করবে, তার শাস্তিও সে পাবে।” (পবিত্র সূরাতুল যিলযাল শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ-৭, ৮)
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “তুমি দুনিয়ার জন্য ততটুকু আমল করো, যতোদিন তুমি দুনিয়াতে অবস্থান করবে। পরকালের জন্য ততটুকু আমল করো, যতোদিন তুমি পরকালে স্থায়ী থাকবে। মহান আল্লাহ পাক উনার জন্য ততটুকু আমল করো, যতোটুকু উনার কাছে তোমার প্রয়োজন রয়েছে এবং জাহান্নামের আমল ততটুকু করো যতোটুকু তুমি সহ্য করতে পারবে।” (তাফসীরে রুহুল বয়ান, ৮ম খন্ড, পৃ: ১৮; তাফসীরে হাক্কী, ১২তম খন্ড, পৃ: ১৪৯)
নামায-এ গাফলতিকারীদের শাস্তি:
পবিত্র মি’রাজ শরীফ উনার রাতে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এক দলকে দেখলেন, যাদের মাথা পাথর দ্বারা পিষিয়ে চূর্ণ-বিচুর্ণ করা হচ্ছে। পিষ্ট হয়ে যাওয়ার পর পুনরায় তা আগের মতো হয়ে যাচ্ছে। পুনরায় পেষা হচ্ছে এবং এভাবেই চলতে থাকে। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি জিজ্ঞাসা করলেন, এরা কারা? হযরত জিবরীল আলাইহিস সালাম তিনি বললেন, এরা হচ্ছে তারা, যারা নিদ্রায় বিভোর থাকে ও নামাযের ব্যাপারে অলসতা করে। নাউযুবিল্লাহ!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে