তাযকিয়া ও সম্মান পেতে চাইলে সকলকে শুকরিয়া আদায় করতে হবে


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন:
يَعْرِفُونَ نِعْمَتَ اللَّـهِ ثُمَّ يُنكِرُونَهَا وَأَكْثَرُهُمُ الْكَافِرُونَ
অর্থ: “তারা মহান আল্লাহ পাক উনার নিয়ামত চেনে, তারপরও তা অস্বীকার করে, আর তাদের অধিকাংশই কাফির।” (পবিত্র সূরা নাহল শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৮৩)
তাযকিয়া ও সম্মান অর্জনের উপায় হলো শুকরিয়া আদায় করা। কারণ নিয়ামতের শুকরিয়া আদায়ের মাধ্যমে শুধুমাত্র মহান আল্লাহ পাক উনাকেই ওই নেয়ামতদাতা হিসেবে স্বীকার করা হয়। যিনি নিয়ামতসমূহকে সম্মান ও অনুগ্রহস্বরূপ উনার বান্দার উপর নাযিল করেন। যে বান্দা নিঃস্ব এবং অসহায় এবং যে অনুগ্রহ ছাড়া চলতে পারে না। কাজেই শুকরিয়া আদায় করাটা মহান আল্লাহ পাক উনার হক্ব এবং আমাদের প্রতি উনার অনুগ্রহের স্বীকৃতি। এই স্বীকৃতি দেওয়া বান্দার জন্য ফরয। একারণেই মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার শুকরিয়া আদায়ের পুরস্কারকে এত সম্মানজনক করেছেন।
তাছাড়া কেউ কোনো নিয়ামতের কথা গোপন করলে সে ওই নেয়ামতকে অস্বীকার করল, আর কোনো নেয়ামতের কথা প্রকাশ করলে সে তার জন্য শুকরিয়া আদায় করলো।
হযরত উমর ইবনু আব্দুল আযীয রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন- “মহান আল্লাহ পাক উনার নিয়ামতের কথা পরস্পরকে স্মরণ করিয়ে দাও। কারণ সেগুলো আলোচনা করাও হলো শুকরিয়া আদায় করা।”

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে