দানে হায়াত বা রিযিক বাড়ে!


দানে হায়াত বা রিযিক বাড়ে!

শুধুমাত্র একটি ইবাদতের মাধ্যমে ধন-সম্পদ, নেক হায়াত বৃদ্ধি করে নিন!!

পবিত্র হাদীছে কুদসী শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,
اَنْفِقْ بَا اِبْنِ اأدَمَ اُنْفِقْ عَلَيْكَ
অর্থ: “হে আদম সন্তান তুমি আমার রাস্তায় খরচ কর, আমিও তোমাকে দান করব।” সুবহানাল্লাহ!
উক্ত পবিত্র হাদীছে কুদসী শরীফ উনার মাধ্যমে মহান আল্লাহ পাক তিনি জানিয়ে দিয়েছেন যে, আদম সন্তান যদি মহান আল্লাহ পাক উনার রাস্তায় দান করে; তাহলে মহান আল্লাহ পাক তিনিও তাকে দান করবেন। অর্থাৎ তার ধন সম্পদ ইত্যাদি বৃদ্ধি করে দিবেন। এছাড়াও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত আছে,
مَا نَقَصَتْ صَدَقَةٌ مَّنْ مَّالٍ
অর্থ: ‘দানের দ্বারা সম্পদ কমে না।’ অর্থাৎ সদাই বাড়ে। সুতরাং, দানের দ্বারা যে শুধু সম্পদ বাড়ে তা নয় বরং এই দানের মাধ্যমে বালা মুছিবতও দূর হয়। যেমন পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে,
الصَّدَقَةُ تَرَدُّالْبَلَاءَ.
‘দান ছদকা বালা মুছিবত দূর করে।’ সুবহানাল্লাহ!
এছাড়াও দান ছদকার আরো অনেক ফযীলত আছে, যেমন, দান ছদকা করলে হায়াতও বৃদ্ধি পায়। এ প্রসঙ্গে একটি ঘটনা উল্লেখ করলে বুঝা যাবে- একবার হযরত জীবরীল আলাইহিস সালাম তিনি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খিদমত মুবারকে উপস্থিত হয়ে বললেন, ইয়া রসূলাল্লাহ ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! অমুক ছাহাবী উনার হায়াত মুবারক আর একদিন আছে, অতঃপর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উক্ত হযরত ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনাকে জিজ্ঞাসা করলেন, আপনার শেষ ইচ্ছা কি? তখন উক্ত ছাহাবী তিনি যেহেতু শাদী মুবারক করেননি তাই তিনি বললেন, উনার ইচ্ছা হচ্ছে, শাদি মুবারক করে আহলিয়া উনার হাতে তৈরীকৃত হালুয়া রুটি খাওয়া। অতঃপর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদেরকে উদ্দেশ্য করে বললেন, কে আছেন যে উনার মেয়েকে একদিনের জন্য শাদী মুবারক দিবেন। অতঃপর একজন ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি উনার মেয়েকে একদিনের জন্য শাদী মুবারক দেয়ার ইচ্ছা পোষণ করলেন, অতঃপর উনাদের শাদী মুবারক সম্পন্ন হলো এবং উনার আহলিয়া হালুয়া রুটি তৈরী করলেন, তারপর যখন খাওয়ার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করলেন, এমন সময় একজন ভিক্ষুক এসে কিছু সাহায্য প্রার্থনা করলো, তখন উক্ত ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি সেই হালুয়া রুটি নিজে না খেয়ে সম্পূর্ণটাই ভিক্ষুককে দান করে দিলেন। অতঃপর উনারা ঘুমিয়ে গেলেন এবং পরদিন পবিত্র ফজর উনার সময় উক্ত ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি পবিত্র ফজর উনার নামায আদায় করার জন্য সম্মানিত মসজিদে নববী শরীফ উপস্থিত হলেন, এদিকে তিনি যখন সম্মানিত মসজিদে নববী শরীফে প্রবেশ করলেন, তখন হযরত জীবরীল আলাইহিস সালাম তিনিও নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খিদমত মুবারকে হাযির হয়ে বললেন, ইয়া রাসূলাল্লাহু ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম লওহে মাহফুয উনার মধ্যে উক্ত ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার হায়াত মুবারক একদিনই লিখা ছিলো, তবে শর্ত ছিলো তিনি যদি দান করেন তাহলে উনার হায়াত মুবারক বৃদ্ধি পাবে। তিনি গত রাতে দান করেছিলেন তাই উনার হায়াত মুবারক বৃদ্ধি করে দেয়া হয়েছে। সুবহানাল্লাহ!
অতঃপর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বললেন, আপনি আপনার বিছানা মুবারকের নিচে দেখতে পাবেন একটি সাপ মৃত অবস্থায় পড়ে আছে। অতঃপর উক্ত ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বাসায় এসে উনার বিছানা মুবারক উঠিয়ে দেখতে পেলেন একটি সাপ মৃত অবস্থায় পড়ে আছে মুখে হালুয়া রুটি নিয়ে। সুবহানাল্লাহ!
উক্ত মুবারক ঘটনা উনার মাধ্যমে আমরা পরিপূর্ণভাবে বুঝতে পারলাম যে, দান ছদকা করার কারণে হায়াত মুবারক বৃদ্ধি পেয়েছে। সুবহানাল্লাহ! মূলত এই দান ছদকা এটা এমন এক ইবাদত যার মাধ্যমে ধন-সম্পদ, হায়াত ইত্যাদি সমস্ত কিছুই বৃদ্ধি পায়। এবং বালা-মুছিবত,বিপদ-আপদ ইত্যাদি সমস্ত কিছু থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। মহান আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামীন তিনি আমাদের সকলকে উনার রাস্তায় দান করার তাওফীক দান করুন। আমিন!

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে