দুধ পান করা সুন্নত


দুধ বেহেশতী খাবার। হাদীস শরীফে এসেছে, মধু সকল রোগের মহৌষধ এবং দুধের কোন বিকল্প নেই।
মি’রাজ শরীফ উনার রাতে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে আল্লাহপাক দুধ দ্বারা আপ্যায়ণ করেছেন।
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,
“দুধ ব্যতিত এমন কোন খাদ্য আমার জানা নেই, যা খাদ্য ও পানীয় উভয়ের জন্য যথেষ্ট”।
হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি দুধ পান করেছেন এবং পানি আনিয়ে কুলি করেছেন।
হযরত আনাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বলেন,
আমি পাত্রে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে দুধ,মধু, ছাতু, শরবত, নবীয ও ঠান্ডা পানি পান করিয়েছি।
(বুখারী শরীফ, মুসলিম শরীফ)

ক্যালসিয়াম এবং প্রোটিন সমৃদ্ধ দুধ স্বাস্থ্যের জন্য কতোটা উপকারী তা বলা বাহুল্য। কিন্তু দেখা যায় মহিলারা অনেকেই এই দুধ পান থেকে বিরত থাকে। কেউ কেউ বলে , কাজের ব্যস্ততায় খাওয়া হয় না । আবার কেউ বলেন, দুধ খেলে খাবার হজম হয় না । আসলে আমাদের প্রত্যেক পরিবারের সদস্যদের প্রতি দুধ খাওয়ার প্রতি গুরুত্ব দিতে হবে।দ্বীন ইসলামে দুধ খাওয়ার প্রতি অনেক গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।
হাদীস শরীফে রয়েছে,” হযরত সুয়াইবা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হতে বর্ণিত , হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, তোমরা অবশ্যই গাভীর দুধ পান করবে। কেননা এর মধ্যে শেফা রয়েছে।
(সুবহানাল্লাহ)

Views All Time
1
Views Today
3
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে