‘দোষে গুণে মানুষ’ এই প্রবাদ বাক্যটি চালু আছে আমাদের সমাজে।


‘দোষে গুণে মানুষ’ এই প্রবাদ বাক্যটি চালু আছে আমাদের সমাজে। তবে হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনারা মাসুম উনাদের কোন ত্রুটি নাই। এই বিষয় সাধারণ মানুষ জানে। প্রত্যেক মানুষই তার দোষত্রুটি জানে, যেমন জানে অন্যরা। দোষ ও গুণ নিয়েই মানুষ। একজন ভাল মানুষ ১০০% ভাল নাও হতে পারে।

তার মধ্যে কিছু ত্রুটি থাকতেও পারে। খারাপ মানুষের বেলায়ও অনুরূপ। কেহ ১০০% খারাপ হয় না। একজন ডাকাতেরও পরিবার পরিজন আছে, তাদের জন্য ডাকাতের মনে থাকতে পারে স্নেহ মমতা। তবে কেউ যদি ভাল হতে চায়, সে ভাল হতে পারে। অবশ্য একদিনে কেউ ভাল বা মন্দ হযে যায় না। কেহ ভাল হতে চাইলে সে তার মন্দ দোষগুলি চিহ্নিত করে একটি একটি করে ত্রুটিগুলি ত্যাগ করতে পারলে একদিন সে ভাল হয়ে যাবেই যাবে। বদ অভ্যাসগুলো কিভাবে ত্যাগ করা যায় দৃঢ়চিত্ত হয়ে মনে মনে আওড়াতে হবে আমি অমুক খারাপ জিনিসটা ত্যাগ করব। এবং খারাপ অভ্যাস বা ত্রুটিটা সচেতনভাবে এড়িয়ে চললে ২১/৪০ দিনের কোশেশে ত্রুটিটা সংশোধন হয়ে যাবে। বিজ্ঞজনেরা বলে। চরিত্রের সাথে রক্ত এবং পরিবেশের প্রভাব থাকে। পরিবেশ নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। আর পাস আন পাস এর যিকির বা কলবী যিকির রক্তের দোষ মিটিয়ে দেবে। সুতরাং আত্ম নিয়ন্ত্রণ ও যিকিরের দ্বারা চরিত্রের সংশোধন সম্ভব।

Views All Time
2
Views Today
3
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে