দ্বীন ইসলাম উনার দৃষ্টিতে বাল্য বিবাহ সামাজিক ব্যাধি নয় বরং সুন্নতে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম


নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- “তোমাদের জন্য আমার সুন্নত মুবারক অবশ্যই পালনীয়। আমরা এই হাদীছ শরীফ দ্বারা বুঝতে পারি যে, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেছেন যে, উনার সুন্নত মুবারক উম্মতকে পালন করতে হবে। কেননা মহান আল্লাহ পাক তিনিই আমাদেরকে পবিত্র সম্মানিত কালামুল্লাহ শরীফ উনার সূরা নিসা শরীফ উনার ৫৯ আয়াত শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন- “তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনাকে অনুসরণ কর এবং উনার যিনি হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অনুসরণ কর এবং তোমাদের মধ্যে যারা উলিল আমর রয়েছেন উনাদেরকে অনুসরন কর।
তাই আমাদের দায়িত্ব কর্তব্য হচ্ছে- উনার সুন্নত সমূহকে আঁকড়িয়ে ধরা। আর কেউ যদি সুন্নতকে না আঁকড়িয়ে ধরে তাহলে সে গুমরাহ হয়ে যাবে।
আমরা জানি যে হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার ৬ বছর বয়স মুবারকে নিছবাতুল আযীম মুবারক হয়। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে। তাই এ প্রসঙ্গে আমরা বলতে পারি বাল্যবিবাহ খাছ সুন্নত। কেননা হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার সাথে ৬ বছর বয়স মুবারকে নিছবাতুল আযীম মুবারক সম্পন্ন করেন।
কিন্তু এখন কাফির-মুশরিকরা বলে থাকে যে, বাল্যবিবাহ সামাজিক ব্যাধি যা সমাজে অশান্তি বয়ে আসে। নাউযুবিল্লাহ!
অসংখ্য পবিত্র হাদীছ শরীফ দ্বারা প্রমাণিত যে বাল্যবিবাহ সুন্নত।
হযরত আব্দুল্লাহ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত নিশ্চয়ই নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার নিছবাতুল আযীম মুবারক হয় উনার যখন ৬ বছর বয়স মুবারক ছিলেন। আর তিনি ৯ বছর বয়স মুবারকে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার হুজরা শরীফে তাশরীফ মুবারক গ্রহণ করেন। (আল মুজামুল কাবীর লিত তাবারানী ৮ম জি: ৪৯০ পৃSmile
তাই পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনার ফতওয়া হচ্ছে বাল্যবিবাহ খাছ সুন্নত মুবারক। সুবহানাল্লাহ!
৯৮ ভাগ মুসলমানদের দেশ বাংলাদেশ। বাংলাদেশ সরকার জঘন্যভাবে বাল্যবিবাহ বিরোধী আইন জারী ও তৈরী করে মুসলমানদের ঈমান নষ্ট করে দিচ্ছে। যে কেউ বাল্যবিবাহ দিলে তাকে শাস্তি দেয়া হচ্ছে। নাউযুবিল্লাহ!
মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সুন্নত পালন করার কারণে। নাউযুবিল্লাহ!
অতএব বাংলাদেশ সরকারের জন্য ফরয হচ্ছে অতিসত্বর বাল্যবিবাহ বিরোধী আইন প্রত্যাহার করা এবং বাল্যবিবাহকে খাছ সুন্নত হিসেবে মেনে নেয়া।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে