ধর্মব্যবসায়ী, আশাদ্দুদ দরজার জাহিল উলামায়ে সূ’রাএবং টিভি চ্যানেলে বলেছে, ঈদে মীলাদুন নবী পালনকারী ইরাকের ইরবাল শহরের বাদশাহ মুজাফফর আবূ সাঈদ ছিলেন মূর্খ ও যিন্দীক। নাঊযুবিল্লাহ!!! নাঊযুবিল্লাহ!!! নাঊযুবিল্লাহ!!!


ধর্মব্যবসায়ী, আশাদ্দুদ দরজার জাহিল উলামায়ে সূ’রাএবং টিভি চ্যানেলে বলেছে, ঈদে মীলাদুন নবী পালনকারী ইরাকের ইরবাল শহরের বাদশাহ মুজাফফর আবূ সাঈদ ছিলেন মূর্খ ও যিন্দীক। নাঊযুবিল্লাহ!!! নাঊযুবিল্লাহ!!! নাঊযুবিল্লাহ!!!
************************************************************************
সম্মানিত সুরা ইউনুস শরীফ যা সম্মানিত ক্বাবা শরীফ উনার মধ্যে অবতীর্ণ, সম্মানিত আয়াত শরীফ ৫৭ ও ৫৮। খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক ইরশাদ মুবারক করেন।
 
يَا أَيُّهَا النَّاسُ قَدْ جَاءتْكُم مَّوْعِظَةٌ مِّن رَّبِّكُمْ وَشِفَاء لِّمَا فِي الصُّدُورِ وَهُدًى وَرَحْمَةٌ لِّلْمُؤْمِنِينَ
সমস্ত কায়িনাত বাসীকেই লক্ষ্য করে মহান রত তায়ালা বলেন তবে খাছ করে মানব জাতীকে বলতেছেন যে হে মানবকুল, তোমাদের কাছে আমার তরফে থেকে এক মহান ব্যক্তিত্ব মুবারক তাশরীফ মুবারক নিয়েছেন যিনি নছিহতকারী এবং তোমাদের অন্তরের শিফাদানকারী এবং তিনি হিদায়েত দানকারী খাছ করে মোমনেদের জন্য এংবং রহমত দানকারী সমগ্র কায়িনাত বাসীর জন্য।
قُلْ بِفَضْلِ اللّهِ وَبِرَحْمَتِهِ فَبِذَلِكَ فَلْيَفْرَحُواْ هُوَ خَيْرٌ مِّمَّا يَجْمَعُونَ
হে আমার হাবীব সাইয়্যিদুল মুরসালীন ইমামুল মুরসালীন খতামুন্যাবিয়্যিন নুরে মুজাসসাম হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আপনি সমগ্র কায়িনাত বাসীকে বলেদিন যে আমি যে তোমাদেরকে ফজল করম, রহমত বরকত দিচ্ছি সে জন্য আমাকে পাওয়ার কারনে তোমাদের উচিত খূশী প্রকাশ করা, আর এ খুশী প্রকাশ করাটা (আমাকে পাওয়ার কারনে) তোমাদের জীবনে যত ঈবাদত বন্দেগী তোমরা করনা কেন সমস্ত ইবাদতের চেয়ে উত্তম। সুবহানাল্লাহ।
 
পূর্ব প্রকাশিতের পর —
***********************
আল্লামা হযরত ইমাম জালালুদ্দীন সুয়ূতী রহমতুল্লাহি আলাইহি উক্ত বাদশাহ সম্বন্ধে উনার ‘হুসনুল মাক্বাছীদ ফী আমালিল মাওয়ালিদ’ কিতাবে সুপ্রসিদ্ধ ঐতিহাসিক ও মুহাদ্দিছ আল্লামা হযরত ইবনে কাছীর রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার উদ্ধৃতি দিয়ে লিখেন যে-
وكان شهما شجاعا بطلا عالما عادلا رحمه الله واكرم مثواه.
অর্থ: ‘তিনি তীক্ষ্ণ বুদ্ধিসম্পন্ন, সাহসী, বীর্যবান, আলিম ও ন্যায় বিচারক ছিলেন। আল্লাহ পাক উনার উপর রহম করুন এবং উনাকে সম্মানিত বাসস্থান দান করুন।’
এমনিভাবে উক্ত বাদশাহর ছানা-ছিফত ও প্রশংসার বিবরণ সীরাতে শামী, সীরাতে হালাবিয়াহ, সীরতে নববিয়াহ ও যুরকানী ইত্যদি কিতাবে বর্ণিত রয়েছে।
অতএব, উক্ত বাদশাহকে মূর্খ ও যিন্দীক অভিহিত করে শরীয়তের ফতওয়া মুতাবিক উলামায়ে ছূ’রা নিজেরাই মূর্খ ও যিন্দীক হিসেবে সাব্যস্ত হয়েছে। কারণ, কেউ যদি কাউকে কোন অপবাদ দেয়, সে যদি তার উপযুক্ত না হয় তাহলে যে অপবাদ দিয়েছে সেটা তার উপরই বর্তাবে এবং উক্ত অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েই সে মৃত্যুমুখে পতিত হবে। নাঊযুবিল্লাহ!
যেমন এ প্রসঙ্গে হাদীছ শরীফ-এ বর্ণিত রয়েছে-
عن ابى الدرداء رضى الله تعالى عنه قال سمعت رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول ان العبد اذا لعن شيأ صعدت اللعنة الى السماء فتغلق ابواب السماء دونها ثم تهبط الى الارض فتغلق ابوابها دونها ثم تأخذ يمينا وشمالا فاذا لم تجد مساغا رجعت الى الذى لعن فاذا كان لذالك اهلا والا رجعت الى قائلها.
অর্থ: “হযরত আবূ দারদা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ্ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি, যখন কোন বান্দা কোন বস্তুকে অভিসম্পাত করে তখন সেই অভিসম্পাত আকাশে উঠে, তখন আকাশের দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়, তখন সেই অভিসম্পাত যমীনের দিকে প্রত্যাবর্তন করে, তখন যমীনের দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়। অতঃপর তা ডান দিকে ও বাম দিকে যায় এবং যখন সেখানেও কোন রাস্তা না পায়, শেষ পর্যন্ত সেই ব্যক্তি বা বস্তুর দিকে প্রত্যাবর্তন করে, যার উপর অভিসম্পাত করা হয়েছে। যদি সে অভিসম্পাতের উপযুক্ত হয়, তবে তার উপর পতিত হয়; অন্যথায় অভিসম্পাতকারীর দিকেই ফিরে আসে।।” (আবূ দাউদ শরীফ)
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে