ধর্মের নাম ফেরিকারী সন্ত্রাসবাদী সংগঠনগুলো উগ্রতা ছড়াচ্ছে


ধর্মের নাম ফেরিকারী ৪২টি সন্ত্রাসবাদী সংগঠন উগ্রতা ছড়াচ্ছে। যুদ্ধাপরাধী ও তাদের পক্ষাবলম্বনকারী দেশী-বিদেশী অপশক্তি এতে ইন্ধন দিচ্ছে। 
গোয়েন্দা রিপোর্টের ভাষ্য- ‘যুদ্ধাপরাধের বিচারের নামে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি চিরতরে বিলুপ্ত করার পাঁয়তারা চলছে’ বলে ধুয়া তুলে ষড়যন্ত্রকারীরা ছোট-বড় ৪৪টি সন্ত্রাসবাদী সংগঠনকে একাট্টা করার টার্গেট নিয়ে মাঠে নেমেছে। আদর্শ ও মতগত বিভেদের প্রশ্নকে পেছনে রেখে গোপনে গড়ে তুলছে পারস্পরিক সম্পর্ক, সহযোগিতা এবং অস্ত্র-বিস্ফোরকের আদান-প্রদানের যোগসূত্র। হরকাতুল জিহাদ (হুজি) ও জামা’আতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি)সহ শীর্ষস্থানীয় সন্ত্রাসবাদী সংগঠনগুলো এর নেতৃত্ব দিচ্ছে। সদূরপ্রসারী পরিকল্পনা নিয়ে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠীর সদস্যরা এ তৎপরতায় নীতিগত সমর্থন দিয়েছে।
সূত্র জানিয়েছে, গোয়েন্দারা দেশের অখ্যাত-কুখ্যাত সব ধর্মান্ধ সন্ত্রাসবাদী সংগঠনগুলোকে পর্যবেক্ষণের তালিকায় রেখেছে। একই সঙ্গে সক্রিয় সংগঠনগুলোর শীর্ষস্থানীয় নেতাদের চিহ্নিত করা হয়েছে। নিষিদ্ধ ঘোষিত শক্তিশালী সন্ত্রাসবাদী সংগঠন জেএমবি, জেএমজেবি ও হরকাতুল জিহাদ (হুজি)সহ হিজবুত তাওহিদ, ইসলামী সমাজ, হিযবুত তাহরীর, ইসলামী ডেমোক্রেটিক পার্টি, জাগ্রত মুসলিম জনতা, আল্লার দল, শাহাদাৎ-ই হিকমা পার্টি বাংলাদেশ, তামির আদদ্বীন বাংলাদেশ ও তৌহিদী ট্রাস্ট তাদের নাম পরিবর্তন করে অন্য নামে সংগঠিত হয়ে অপতৎপরতা চালানোর চেষ্টা করছে কিনা- গোয়েন্দা সংস্থাগুলো তাও খতিয়ে দেখছে। নিষিদ্ধ ঘোষিত জেএমবি এক সময় ‘ইসলাম ও মুসলিম’ নামে নতুন করে সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করেছিলো।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে