নকশায় হায়দার, শাফিউল উমাম সাইয়্যিদুনা হযরত শাহদামাদ আউওয়াল আলাইহিস সালাম তিনি হচ্ছেন ‘যুন নূরীল মুজাদ্দিদীল আযীম’


মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন তিনি যাঁকে ইচ্ছ উনাকেই উনার জন্য মনোনীত করেন। আর মহান আল্লাহ পাক উনার মনোনীত করার বিষয় সম্পর্কে তিনিই সর্বাধিক জ্ঞাত। আমরা আমাদের যাহিরী দৃষ্টিতে দেখতে পাই- আমাদের সাইয়্যিদুনা হযরত মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি এবং উনার মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালামগণ উনারা হচ্ছেন- নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আখাছছুল খাছ আওলাদ তথা আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অন্তর্ভুক্ত। সুবহানাল্লাহ!
কাজেই উনাদের সম্মান, মর্যাদা, মর্তবা ফাযায়িল, ফযীলত মুবারক কতটা উচ্চ পর্যায়ে- সেটা চিন্তা-ফিকিরেরও ঊর্ধ্বে। আর তাই একথাও উপলব্ধি করতে কষ্ট হওয়ার কথা নয় যে, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার সম্মানিতা তনয়া আলাইহাস সালাম উনাদেরকে যাঁরা ধারণ করবেন অর্থাৎ উনাদের সাথে যাঁরা সম্পৃক্ত হবেন উনাদের শান-শওকতও কতটা সমুন্নত ও বুলন্দকৃত! সুবহানাল্লাহ!

মহান আল্লাহ পাক তিনি যে ব্যক্তি যেমন মর্যাদার অধিকারী সেই ব্যক্তির সাথে উনার সমপর্যায়ের মাক্বামে উপনীত ব্যক্তিকেই সম্পৃক্ত করে থাকেন। সুবহানাল্লাহ! নকশায়ে হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম, নাক্বীবাতুল উমাম সাইয়্যদাতুনা হযরত শাহযাদী ঊলা আলাইহাস সালাম উনাকে ধারণ করার কারণে হযরত শাফিউল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি ‘যুন নূরীল মুজাদ্দিদীল আযীম’ লক্বব মুবারকে ভূষিত হন। সুবহানাল্লাহ!

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে