“নবী দর্শন” নামক গল্পের কুফরী বক্তব্যের সংশোধন চাই


‘ক্বদমবুছী’ বা ‘পদচুম্বন’ খাছ সুন্নত উনার অন্তর্ভুক্ত। হযরত ওয়াযে ইবনে যারে রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি উনার দাদা হতে বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, “আমরা আব্দুল কায়েছ গোত্রে থাকা অবস্থায় যখন পবিত্র মদীনা শরীফ উনার মধ্যে আসতাম, তখন আমরা সাওয়ারী হতে তাড়াতাড়ি অবতরণ করে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র হাত মুবারক ও পবিত্র ক্বদম মুবারক উনাতে বুছা দিতাম।” সুবহানাল্লাহ! (অনুরূপ বযলুল মাজদাহ জি: ৬, পৃ: ৩২৮, ফতহুল বারী জি: ১১, পৃ: ৫৭, মিশকাত শরীফ, মিরকাত শরীফ জি : ৭, পৃ: ৮০, এলাসি সুনান জি: ১৭, পৃ: ৪২৬ ইত্যাদি কিতাবসমূহে উল্লেখ আছে)
অথচ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড থেকে প্রকাশিত বাংলা সাহিত্য বইয়ে এস ওয়াজেদ আলী রচিত “নবী দর্শন” নামক গল্পে লিখিত- ‘আমার উম্মত কারো পদ চুম্বন করে না, আমারও না। এসো বৎস আলিঙ্গন করি।’ নাউযুবিল্লাহ! যা সরাসরি ক্বদমবুছী তথা খাছ সুন্নত উনার আমলকে অস¦ীকার করা এবং নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি মিথ্যারোপ করা। নাউযুবিল্লাহ!
স্মরণীয় যে, সুন্নত উনাকে অস¦ীকার করা এবং হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি মিথ্যিারোপ উভয়ই জাহান্নামী হওয়ার জন্য যথেষ্ট।
তাই আমরা ৯৭ ভাগ মুসলমান সরকারের পক্ষ থেকে অনতিবিলম্বে এই কুফরী বক্তব্যের সংশোধন চাই।

Views All Time
1
Views Today
3
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

  1. haq kothahaq kotha says:

    oneke bole pa chombon nobir jonno niddristo,kon hadith nobir jonno niddristo er konta niddristo na kivabe bujbo.

    • hasnat says:

      আল্লাহপাক কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেছেন, “হাতু বুরহানুকুম ইন কুনতুম সদ্বেকীন”। যদি সত্যবাদী হও দলীল পেশ কর।
      এখন আল্লাহপাকের হাবীব হুযুরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে ব্যতীত কাউকে ক্বদমবুছী করা নিষিদ্ধ তা কুরআন শরীফ উনার কোন আ্য়াত শরীফ বা হাদীছ শরীফ উনার কিতাব উনার কোন হাদীছ শরীফ দ্বারা নিষিদ্ধ তা জানতে চাই। অন্যথা্য় হালাল বিষয়কে হারাম মনে করার কারনে সে কাফের হয়ে যাবে। হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে,” আলাইকুম বি সুন্নতি ওয়া সুন্নাতিল খুলাফায়ে রশিঈদীনাল মাহদী তামাচ্ছাকু বিহা ওয়াদ্দু আলাইহা বিন নাওয়াজিস।” তোমাদের জন্য আমার সুন্নত মুবারক এবং আমার হিদায়েতপ্রাপ্ত খুলাফায়ে রশিঈদীন উনাদের সুন্নত মুবারক অবশ্যই পালনী্য়। তোমরা তা মারীর দাত দিয়ে শক্তভাবে আটকে ধর।”
      এখন হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে এক ছাহাবী অপর ছাহাবী উনাকে ক্বদমবুছী করার সুস্পষ্ট দলীল রয়েছে। হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে হযরত যায়েদ ইবনে ছাবিত রদ্বি্যাল্লাহু তাআলা আনহু উনি বর্ণনা মুবারক করেছেন, উনি আনাস বিন মালিক রদ্বি্যাল্লাহু তাআলা আনহু উনার হাত মুবারকে বুছা মুবারক দিয়েছেন। তিনি আরোও বর্ণনা মুবারক করেছেন হযরত আলী কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহু আলাইহিস সালাম উনি হযরত আব্বাস রদ্বি্যাল্লাহু তাআলা আনহু উনার হাত এবং পা মুবারকে বুছা মুবারক দিয়েছেন।(ফতহুল বারী,খন্ড-১১,পৃষ্ঠা নং-৫৭; তোহফাতুল আহওয়াযী; শরহে তিরমিজী খন্ড-৭,পৃষ্ঠা নং-৫২৮)।
      এছারা নিজের মাকে ক্বদমবুছী করার ফযীলত সম্পর্কে হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে যে ব্যাক্তি তার মা্য়ের পা্য়ে বুচা বা চুম্বন দিল সে ব্যাক্তি মুলত বেহেশতের চোকাঠের উপর চুম্বন করল। সুবহানাল্লাহ।(মাবছুত লিছ সারাখসী খন্ড-১০,পৃষ্ঠা নং-১৪৯)
      আতএব প্রমানিত হল ক্বদমবুছী করা খাছ সুন্নত। মুলত দেওবন্দী তাবলিগী জামাতী খারিজী ওহাবী এরা মুসলমানদেরকে এরকম ফযীলতপূর্ণ আমল থেকে বিরত রাখার জন্য এবং হাদীছ শরীফ অস্বীকার করে জাহান্নামী হও্রয়ার জন্য এরূপ অপপ্রচার করে থাকে।

  2. গোলামে মাদানী আক্বাগোলামে মাদানী আক্বা says:

    onotibilombe aei kufri boktobber songsodhon chai

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে