নারী-পুরুষের অবাধ মেলামেশা এবং বেপর্দাই এই সমাজকে ধ্বংস করছে


বর্তমানে সমাজের যে চিত্র ফুটে উঠছে তা ভয়ঙ্কর। সমাজবিদ যারা এ বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করছে তাদের তথ্য অনুযায়ী, ঢাকা ব্যাংকককে ছাড়িয়ে গেছে অনেক আগেদ। নারী পুরুষের অবাধ মেলামেশা হারাম বেপর্দার প্রতিফল আর কি হবে। স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা সাইবার আক্রমণের ফলে এতটাই আধুনিকা হচ্ছে যে ধর্ম, সমাজ এবং পরিবার কিছুরই তোয়াক্কা করছে না। সমাজে পর্দার প্রতিষ্ঠা এবং নারী পুরুষের অবৈধ মেলামেশা বন্ধ করতে না পারলে সমাজের অবস্থা যে কত নিচে নেমে যেতে পারে তা কল্পনারও বাহিরে। পাশ্চাত্যের বর্তমান অবস্থার কি কারণ। আমাদের সমাজ থেকে অনেক আগে তারা বেপর্দা ও নারী-পুরুষের মেলামেশা ও ছাত্র-ছাত্রী একত্রে পড়াশুনা শুরু করেছিল। সুতরাং বর্তমান সমাজের অধঃপতন ঠেকাতে না পারলে সমাজ যে ধ্বংসের কোন পর্যায় পৌঁছবে তা ভাবা যায় না।
এই অধঃপতন থেকে বাঁচার উপায় মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে স্পষ্ট ঘোষণা করেছেন। মহিলাদের পর্দা এবং পর্দাই শুধু এই অধঃপতন থেকে বাঁচাতে পারে। যে শিক্ষা মানুষকে জঙ্গলবাসী তৈরি করছে সে শিক্ষায় কি কোনো প্রয়োজন আছে।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে