নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শান মুবারক-এ ও পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার বিরুদ্ধবাদীদের কেন পুরস্কৃত করা হচ্ছে?


কথিত সামাজিক যোগাযোগ সাইট ফেইসবুক ও বিভিন্ন ব্লগে মহান আল্লাহ পাক উনার ও মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার, পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফসহ সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনাদের বিরুদ্ধে কটূক্তিপূর্ণ লেখালেখির প্রমাণ পাওয়ার পরও সংশ্লিষ্ট কুখ্যাত নাস্তিক ব্লগারদের বিরুদ্ধে সরকার এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। অথচ প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কটূক্তির জন্য তাৎক্ষণিক শাস্তি দেয়া হয়েছে অনেককে।
পাঁচবিবিতে মসজিদের ইমামের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা : জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে ওয়াজ মাহফিলে রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মন্ত্রিপরিষদ সম্পর্কে ‘অশালীন ও কটূক্তিপূর্ণ’ বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে সাতক্ষীরা ব্রহ্মরাজপুর বাজার জামে মসজিদের ইমাম ও জেলা ইমাম সমিতির সদস্য মাওলানা মনিরুল ইসলাম ফারুকীর বিরুদ্ধে ২০১১ সালের ৫ ডিসেম্বর রাতে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা করা হয়। রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আইন শাখা-১ এর সহকারী সচিব আবু সাঈদ মোল্লার নির্দেশে পাঁচবিবি থানায় মামলাটি দায়ের করে এসআই আনিছুর রহমান। মাওলানা ফারুকী সাতক্ষীরা উপজেলার কালেরডাঙ্গা গ্রামের রজব আলীর ছেলে। সে বছর ১০ নভেম্বর পাঁচবিবিতে একটি ওয়াজ মাহফিলে ফারুকী তার বক্তব্যে রাষ্ট্রপতিকে কার্টুন বলে আখ্যায়িত করে। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীকে নাস্তিক, বেইমান, বেহায়া ও মন্ত্রিপরিষদকে অবৈধ, দেশ ধ্বংসকারী বলে অভিহিত করেছিল। যার ফলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আনিছুর রহমান তখন সাংবাদিকদের জানায়, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্দেশে মামলাটি দায়ের করা হয়।
অথচ কতিপয় কথিত ব্লগার নামধারী নাস্তিক ও কাফির ব্যক্তি; যেমন- নিতাই ভট্টাচার্য, আসিফ মহিউদ্দীন, সুভ্রত শুভ, পারভেজ আলম, তন্ময় তালুকদার প্রমুখ শয়তানরূপী ব্লগাররা আমাদের প্রিয় নবী নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ও পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাদের সুমহান মুবারক শান সম্পর্কে অবমাননাকর কুরুচিপূর্ণ ও জঘন্য লেখা নিয়মিত প্রকাশ করে যাচ্ছে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার বিদ্বেষী ব্লগগুলোতে। যা যে কোনো ধর্মপ্রাণ মুসলমানের হৃদয়কে জর্জরিত ও আন্দোলিত করে। এমন ধরনের অশ্লীল কুরুচিপূর্ণ লেখার প্রতিবাদ জানানোর ভাষা হয় না। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশের তথা ৯৭ ভাগ মুসলিম দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়েও মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাদের প্রতি এতো মারাত্মক কটাক্ষকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা না নিয়ে উপরন্তু প্রধানমন্ত্রী এসব অসভ্য ব্লগার নামধারী দুর্বৃত্তদের নিরাপত্তা দেয়ার জন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি নির্দেশ দিয়েছে। (সূত্র : বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক)
এর জবাব বাংলাদেশের ১৫ কোটি মুসলমানসহ বিশ্বের সোয়া ৩শ কোটি মুসলমান জানতে চায়। প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কটূক্তিকারীর যদি জেল-জরিমানার শাস্তি হয়, তবে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শান মুবারক-এ ও পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার বিরুদ্ধবাদী কুৎসা রটনাকারীদের কেন পুরস্কৃত করা হচ্ছে?
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে