নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশের পর হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনার বেমেছাল অবদান


নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র বিছালী শান মুবারক মুবারক গ্রহণ করার পর মুসলিম বিশ্বে কিছু চরম সঙ্কটময় পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। সঙ্কটকালীন এ অবস্থার সুযোগে মুনাফিক ও ইসলামবিদ্বেষী চক্ররা পবিত্র ইসলাম ও মুসলমানগণের ক্ষতি করার সুযোগ খুঁজতে থাকে। এ অবস্থায় হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি উনার বেমেছাল ইলমে লাদুন্নী, প্রজ্ঞা ও দূরদর্শীতার মাধ্যমে এবং অন্যান্য বিশিষ্ট হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের সঙ্গে নিয়ে দৃঢ়ভাবে এসবের শান্তিপূর্ণ সমাধান করেন।
নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করার পর নামধারী মুসলমান তথা মুনাফিকরা তাদের মুখোশ খুলে ফেলে। ঐতিহাসিকগণ বলেন, কিছু কিছু গোত্রের দুর্বল ঈমানদারগণ মুনাফিকদের ওয়াসওয়াসায় পবিত্র ঈমানহারা হয়ে তাদের পূর্বতন ধর্মে ফিরে যাচ্ছিল। হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের উপর অত্যান্ত দৃঢ়তা অবলম্বন করে মুনাফিকদের দমন করে সে সকল ঈমানদার মুসলমানদের হিফাজত করেন।
সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি বিভিন্ন সমস্যার সমাধানে ব্যস্ত থাকার সুযোগে একদল মুনাফিক ও তাদের সহযোগীরা যাকাত প্রদানে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন করে। কিন্তু অত্যন্ত বিচক্ষণ দূরদর্শী হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র ইসলামী শরীয়ত উনার সিদ্ধান্তে অটল থেকে তাদের বিরুদ্ধে শরঈ ব্যবস্থা গ্রহণ করে ঘোষণা দেন- কেউ যদি যাকাতের একটি রশি দিতেও অস্বীকার করে তাহলে তার বিরুদ্ধে আমি জিহাদ ঘোষণা করবো। ফলে যাকাত অস্বীকারকারীরা যাকাত প্রদানে বাধ্য হয়।
মিথ্যা নবীদাবিদার মুসাইলামাতুল কাজ্জাবকে দমন করতে গিয়ে ইয়ামামার জিহাদে মুসলিম বাহিনী বিজয় লাভ করেন এবং তাকে হত্যা করেন। কিন্তু এতে দ্বীন ইসলাম উনার ৬০০ জন বীর মুজাহিদ শহীদ হন। উনাদের মধ্যে অধিকাংশজনই ছিলেন পবিত্র কুরআন শরীফ উনার হাফিজ। ফলে হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি কিতাব আকারে পবিত্র কুরআন শরীফ সংরক্ষণ করার তাক্বিদ অনুভব করেন। এমতাবস্থায় তিনি হযরত জায়েদ বিন সাবিত রদ্বিয়াল্লাহু আনহু উনাকে পবিত্র কুরআন শরীফ উনার পবিত্র আয়াত শরীফসমূহ সংগ্রহ করে কিতাব আকারে লিপিবদ্ধ করার র্নিদেশ দেন।
নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিছাল শরীফ মুবারক গ্রহণ করার পর মিথ্যা নবী দাবিদাররা পবিত্র মদিনা শরীফ উনার দিকে আসার হুমকি দিলে হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি তাদের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করেন। হযরত উসমান জুননুরাইন আলাইহিস সালাম উনাকে মিথ্যা নবী দাবিদার আসওয়াদকে দমনের জন্য সিরিয়ায় প্রেরণ করেন। এ মুজাহিদ বাহিনীর হাতে আসওয়াদে করুণ মৃত্যু হয়।
আসওয়াদের করুণ মৃত্যুর পর তার অনুসারীরা পবিত্র মদীনা শরীফ আক্রমণের ঔদ্ধত্য প্রকাশ করে। হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি সৈন্যবাহিনীকে ১১টি ভাগে বিভক্ত করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মিথ্যা নবি দাবিদার ও ইসলামত্যাগী মুরতাদদের বিরুদ্ধে এ বাহিনীকে প্রেরণ করেন। সেনাপতি হযরত খালিদ রদ্বিয়াল্লাহু আনহু মাত্র ৩৫০০ সৈন্য নিয়ে মিথ্যা নবী দাবিদার তুলাইহার বিরুদ্ধে জিহাদে অগ্রসর হন। হযরত খালিদ রদ্বিয়াল্লাহু আনহু তুলাইহাকে হিকমতের সাথে সহজেই পরাজিত করেন। তবে তুলাইহা পরে পুনরায় মুসলমান হয়।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে