নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নিসবতে ‘আযীম শরীফ


খায়বার বিজয়ের পর যখন উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরাহ আলাইহাস সালাম তিনি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত খিদমত মুবারক-এ উপস্থিত হন, তখন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরাহ আলাইহাস সালাম উনাকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনি যা পছন্দ করেন, তা বেছে নিন। যদি আপনি সম্মানিত ও পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাকে পছন্দ করেন, তাহলে আমি আপনাকে আমার সম্মানিত খিদমত মুবারক-এ কবূল করবো। আর যদি আপনি ইয়াহূদী ধর্ম পছন্দ করেন, তাহলে আমি আপনাকে মুক্ত করে দিবো, যাতে আপনি আপনার কাওমের সাথে মিলিত হতে পারেন। জবাবে উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরাহ আলাইহাস সালাম তিনি বলেন,
يَا رَسُولَ اللَّهِ لَقَدْ هَوَيْتُ الإِسْلامَ وَصَدَّقْتُ بِكَ قَبْلَ أَنْ تَدْعُوَنِي.
অর্থ: “ইয়া রসূলাল্লাহ, ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আমি সম্মানিত ও পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাকে মুহব্বত করি। আপনি আমাকে সম্মানিত ও পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার প্রতি আহ্বান করার পূর্বেই আমি আপনাকে সত্য হিসেবে তথা যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার মহাসম্মানিত রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খ¦াতামুন নাবিয়্যীন হিসেবে স্বীকার করে নিয়েছি।” সুবহানাল্লাহ!
ইহুদী ধর্মের প্রতি আমার কোন টান নেই। উম্মুল মু‘মিনী সাইয়্যিদাতুনা হযরত ‘আশিরাহ আলাইহাস সালাম তিনি আরো বলেন,
وَخَيَّرْتَنِي الْكُفْرَ وَالإِسْلامَ فَاللَّهُ وَرَسُولُهُ أَحَبُّ إِلَيَّ مِنَ الْعِتْقِ وَأَنْ أَرْجِعَ إِلَى قَوْمِي.
অর্থ: “আর আপনি আমাকে কুফরী বা সম্মানিত ও পবিত্র দ্বীন ইসলাম যে কোন একটি গ্রহণের ইখতিয়ার মুবারক দিয়েছেন। স্বাধীন হওয়ার চেয়ে এবং আমার কওমের নিকট ফিরে যাওয়ার চেয়ে যিনি খালিক্ব মালিক রব আল্লাহ পাক তিনি এবং উনার মহাসম্মানিত মাহবূব হাবীব, মহাসম্মানিত রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি অর্থাৎ উনারাই আমার নিকট সর্বাধিক প্রিয়।” সুবহানাল্লাহ!
ইয়া রাসূলল্লাহ, ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আমি আপনার সম্মানিত খিদমত মুবারকেই থাকতে চাই। দয়া করে আপনি আমাকে গ্রহণ করুন। সুবহানাল্লাহ! তারপর নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার আরজী মুবারক কবূল করেন। সুবহানাল্লাহ!
কিতাবে বর্ণিত রয়েছে,
وجمع السبي فجاءه دحية فقال يا رسول الله أعطني جارية من السبي فقال اذهب فخذ جارية فأخذ صفية بنت حيي فجاء رجل إلى نبي الله صلى الله عليه وسلم فقال يا نبي الله أعطيت دحية صفية بنت حيي سيدة قريظة والنضير ما تصلح إلا لك قال ادعوه بها فجاء بها فلما نظر إليها النبي صلى الله عليه وسلم قال خذ جارية من السبي غيرها وأعتقها وتزوجها.
অর্থ: “আর (খায়বর বিজয়ের পর) বন্ধিদেরকে একত্রিত করা হলে হযরত দাহ্ইয়তুল কালবী রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু তিনি এসে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত খিদমত মুবারক-এ আরজী পেশ করেন, ইয়া রসূলাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! দয়া করে আমাকে একজন দাসী দান করুন। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করলেন, আপনি গিয়ে একজনকে গ্রহণ করুন। তারপর তিনি উম্মুল মু‘মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরাহ আলাইহাস সালাম উনাকে গ্রহণ করলেন। অত:পর একজন হযরত ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু তিনি এসে বললেন, ইয়া রসূলাল্লাহ, ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি উম্মুল মু‘মিনী সাইয়্যিদাতুনা হযরত ‘আশিরাহ আলাইহাস সালাম উনাকে হযরত দাহ্ইয়াতুল কালবী রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনার জন্য দিয়েছেন। উম্মুল মু‘মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরাহ আলাইহাস সালাম তিনি বনূ কুরাইযাহ্ এবং বনূ নযীর গোত্রের সাইয়্যিদাহ। তিনি একমাত্র আপনার জন্যই উপযুক্ত। সুবহানাল্লাহ! তারপর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, উম্মুল মু‘মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরাহ্ আলাইহাস সালাম উনাকেসহ হযরত দাহ্ইয়াতুল কালবী রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনাকে আসতে বলুন। অত:পর উম্মুল মু‘মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরাহ আলাইহাস সালাম উনাকেসহ হযরত দাহ্ইয়াতুল কালবী রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু তিনি আসলেন। যখন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উম্মুল মু‘মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরাহ্ আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত মর্যাদা মুবারক উনার বিষয় লক্ষ্য করলেন, তখন হযরত দাহ্ইয়াতুল কালবী রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনাকে বললেন, উনাকে ব্যতীত অন্য কাউকে আপনি গ্রহণ করুন। তারপর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উম্মুল মু‘মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরাহ আলাইহাস সালাম উনাকে মুক্ত করে দিয়ে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান নিসবতে ‘আযীম শরীফ করেন।” সুবহানাল্লাহ! (‘আক্বীদাতু আহলিস সুন্নাহ ওয়াল জামা‘য়াহ)
অপর বর্ণনায় রয়েছে,
وَقَدْ قُتِلَ زوجها وكانت عروسًا فاصطفاها النبي صلى الله عليه وسلم لنفسه.
অর্থ: “উম্মুল মু‘মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরাহ্ আলাইহাস সালাম উনার (দ্বিতীয়) আহাল কিনানাহ্ খায়বরের জিহাদে নিহত হয়, তখন উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরহ্ আলাইহাস সালাম তিনি ছিলেন নববধু। অর্থাৎ উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরহ্ আলাইহাস সালাম উনার দ্বিতীয় শাদী মুবারক হওয়ার পর পরই উনার দ্বিতীয় আহাল কিননাহ্ খায়বার জিহাদে নিহত হয়। তারপর নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উম্মুল মু‘মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরাহ্ আলইহাস সালাম উনাকে নিজের জন্য কবূল করেন।” সুবহানাল্লাহ! (্অল বিদায়াহ ওয়ান নিহায়াহ ৪/২২৩)
খায়বার থেকে রওয়ানা হওয়ার পর ছহ্বা’ নামক স্থানে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান নিসবতে ‘আযীম শরীফ হওয়ার পর আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। এখানে সম্মানিত ওয়ালিমা মুবারক উনার মেহমানদারী মুবারক সম্পন্ন করা হয়। ছহ্বা আগমনকালে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনাকে নিজ উটের পিঠে বসান আর নিজর সম্মানিত জুব্বা মুবারক দিয়ে উনাকে ছায়া মুবারক দেন, যাতে লোকেরা জানতে পারে যে, উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরহ্ আলাইহাস সালাম তিনি হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। সুবহানাল্লাহ!
নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহু হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মদীনা শরীফ পৌঁছে উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরহ্ আলাইহাস সালাম উনাকে নিয়ে বিশিষ্ট ছাহাবী হযরত হারিছ ইবনে নু’মান রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনার সম্মানিত বাড়ী মুবারক-এ সম্মানিত তাশরীফ মুবারক রাখেন। তিনি ছিলেন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার একজন অত্যন্ত প্রিয় ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু। সুবহানাল্লাহ! মহান আল্লাহ পাক উনাকে অনেক সম্পদ মুবারক দিয়েছিলেন। তিনি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত খিদমত মুবারক উনার আনজাম মুবারক দেয়ার ব্যাপারে অগ্রগামী উনাদের অন্তুর্ভুক্ত ছিলেন। সুবহানাল্লাহ! উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরহ্ আলাইহাস সালাম তিনি যখন হযরত হারিছ ইবনে নু’মান রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনার সম্মানিত বাড়ী মুবারক-এ সম্মানিত অবস্থান করছিলেন, তখন উনার সম্মানিত খুব ছূরত মুবারক উনার কথা শুনে উনাকে দেখার জন্য হযরত আনসার মহীলা ছাহাবীয়া রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহুন্না উনারা সেখানে গমন করেন।” সুবহানাল্লাহ!

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে