পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ পালন করা সুন্নত; বিদয়াত বলা কুফরী


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,
والذين اتبعوهم باحسان رضى الله عنهم ورضوا عنه
অর্থ: “হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদেরকে যারা উত্তমভাবে অনুসরণ করবে, মহান আল্লাহ পাক তিনি তাদের প্রতিও সন্তুষ্ট হবেন এবং তারাও মহান আল্লাহ পাক উনার প্রতি সন্তুষ্ট। অর্থাৎ তারা মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি লাভ করতে পারবে।” সুবহানাল্লাহ!
‘আখির’ শব্দের অর্থ হচ্ছে ‘শেষ’। আর ‘চাহার শোম্বাহ’ ফার্সী শব্দ। যার অর্থ হচ্ছে ‘ইয়াওমুল আরবিয়া বা বুধবার’।
পবিত্র ছফর মাস উনার ‘শেষ ইয়াওমুল আরবিয়া বা বুধবার’ দিনটি সারাবিশ্বে পবিত্র ‘আখিরী চাহার শোম্বাহ’ শরীফ হিসেবে মশহুর। সেদিন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহিওয়া সাল্লাম তিনি দীর্ঘদিন মারীদ্বি শান মুবারকে থাকার পর পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ ছিহহাতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। তাই গোসল মুবারক করেন এবং হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে আহার মুবারক করেন। হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদেরকে মুবারক ছোহবত দান করেন এতে হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণ উনারা খুশি হয়ে যার যার সাধ্য-সামর্থ্য অনুযায়ী নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক খিদমতে হাদিয়া মুবারক পেশ করেন এবং আলাদাভাবে গরিব-মিসকীনদেরও কিছু দান খয়রাত করেন।
এটাই মূলত পবিত্র ‘আখিরী চাহার শোম্বাহ’ শরীফ উনার মূল বিষয়। তাই পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ পালন করা খাছ ‘সুন্নতে ছাহাবা’। আর এটাকে বিদয়াত বলা কাট্টা কুফরীর অন্তর্ভুক্ত।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে