পবিত্র আশূরা শরীফ উনার সম্পর্কিত পবিত্র হাদীছ শরীফসমূহ


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াা সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, পবিত্র রমাদ্বান শরীফ উনার পর সবচেয়ে ফযীলতপূর্ণ রোযা হচ্ছে- পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ তথা পবিত্র আশূরা শরীফ উনার রোযা। * নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, তোমরা পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররম উনাকে সম্মান করো। * পবিত্র এ দিনে রোযা রাখার বিষয়ে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, আখিরী রসূল, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াা সাল্লাম উনাকে পবিত্র আশূরা উনার রোযার ফযীলত সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, এটা বিগত এক বৎসরের গুনাহর কাফফারাস¦রূপ।” সুবহানাল্লাহ! (মুসলিম শরীফ) * অন্য পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “যে ব্যক্তি পবিত্র আশূরা শরীফ উনার রোযা রাখবে, মহান আল্লাহ পাক তিনি এর বিনিময়ে তার আমলনামায় ষাট বছর দিনে রোযা রাখার ও রাতে ইবাদত করার ফযীলত লিখে দিবেন।” সুবহানাল্লাহ! * পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন যে ব্যক্তি কোনো রোযাদারকে ইফতার করাবে, সে যেন সমস্ত উম্মতে হাবীবীকে ইফতার করালো।” সুবহানাল্লাহ! * পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন পরিবারবর্গকে ভালো খাওয়ানো সম্পর্কে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত আছে, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, “যে ব্যক্তি পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন তার পরিবারবর্গকে ভালো খাদ্য খাওয়াবে ও পরাবে মহান আল্লাহ পাক তিনি সারা বছর তাকে সচ্ছলতা দান করবেন।” সুবহানাল্লাহ! (তাবারানী শরীফ, শুয়াবুল ঈমান লিল বাইহাক্বী, মাসাবা বিস্ সুন্নাহ, মু’মিনকে মাহ ওয়া সাল ও আ’মালী’) * পবিত্র আশূরা শরীফ দিবসে গোসল করা প্রসঙ্গে হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “যে ব্যক্তি পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন (পবিত্র আশূরা শরীফ উনার নিয়তে) গোসল করবে, মহান আল্লাহ পাক তিনি তাকে ১ বৎসরের জন্য রোগ থেকে মুক্তি দান করবেন। মৃত্যু ব্যতীত তার কঠিন কোনো রোগ হবে না এবং সে অলসতা ও দুঃখ-কষ্ট থেকে নিরাপদ থাকবে।” সুবহানাল্লাহ! * চোখে সুরমা লাগানো প্রসঙ্গে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “যে ব্যক্তি পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন চোখে মেশক মিশ্রিত সুরমা লাগাবে তার চোখে ওই দিন থেকে ১ বৎসরের জন্য কোনো কঠিন রোগ হবে না। সুবহানাল্লাহ! * ইয়াতীমের মাথায় হাত বুলানো এবং ক্ষুধার্ত ও পিপাসার্তদেরকে পানি পান করানো প্রসঙ্গে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “যে ব্যক্তি পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন কোনো ইয়াতীমের মাথায় হাত বুলাবে, ক্ষুধার্তকে খাদ্য খাওয়াবে এবং পিপাসার্তকে পানি পান করাবে, মহান আল্লাহ পাক তিনি তাকে সম্মানিত জান্নাত উনার দস্তরখানায় খাদ্য খাওয়াবেন এবং সম্মানিত জান্নাত উনার ‘সালসাবীল’ নামক ঝরণা থেকে পানি পান করাবেন। সুবহানাল্লাহ! খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের উদ্দেশ্যে দোয়া করেছেন, “হে মহান আল্লাহ পাক! আমি উনাদের হযরত হাসান আলাইহিস সালাম এবং হযরত হুসাইন আলাইহিস সালাম (এবং উনাদের আওলাদগণ) উনাদেরকে ভালোবাসি। আপনিও উনাদেরকে ভালোবাসুন এবং যে ব্যক্তি উনাদেরকে ভালোবাসবে তাকেও আপনি ভালোবাসুন, মুহব্বত করুন।” (তিরমিযী শরীফ, মিশকাত শরীফ)

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে