পবিত্র আশূরা শরীফ হচ্ছেন- আক্বীদা বিশুদ্ধ করার ও আমলে ছলেহ বা নেক আমল করার বরকতময় রাত ও দিন। উনার উসীলায় বান্দা-বান্দী ও উম্মত ইহকালে সর্বপ্রকার মুছীবত থেকে নাজাত লাভ করবে এবং পরকালে জাহান্নাম থেকে নাজাত লাভ করে সম্মানিত জান্নাত লাভ করবে।


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘পবিত্র আছর উনার কসম! নিশ্চয়ই সমস্ত মানুষ ক্ষতিগ্রস্তের মধ্যে রয়েছে। শুধুমাত্র তারা ব্যতীত যারা পবিত্র ঈমান এনেছে তথা আক্বীদা উনাকে বিশুদ্ধ করেছে এবং নেক আমল করেছে।’ আজ দিবাগত রাতটিই হচ্ছেন পবিত্র আশূরা শরীফ উনার বরকতময় রাত। পবিত্র আশূরা শরীফ হচ্ছেন- আক্বীদা বিশুদ্ধ করার ও আমলে ছলেহ বা নেক আমল করার বরকতময় রাত ও দিন। উনার উসীলায় বান্দা-বান্দী ও উম্মত ইহকালে সর্বপ্রকার মুছীবত থেকে নাজাত লাভ করবে এবং পরকালে জাহান্নাম থেকে নাজাত লাভ করে সম্মানিত জান্নাত লাভ করবে। তাই প্রত্যেক বান্দা-বান্দী ও উম্মতের জন্য দায়িত্ব কর্তব্য হলো- পবিত্র আশূরা শরীফ উনার সম্মানার্থে আক্বীদা বিশুদ্ধ করে ও সংশ্লিষ্ট আমলগুলো করে মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের খাছ রেযামন্দি বা সন্তুষ্টি মুবারক হাছিলের কোশেশ করা।
যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহইউস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যূল আউওয়াল, সুলত্বানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদে রসূল, মাওলানা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন- খালিছ ঈমানদার বা আল্লাহওয়ালা হতে হলে প্রথমতঃ আক্বীদা উনাকে বিশুদ্ধ করতে হবে অর্থাৎ প্রতি ক্ষেত্রে সম্মানিত আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াত উনাদের আক্বীদা অনুযায়ী আক্বীদা পোষণ করতে হবে। দ্বিতীয়তঃ প্রতি ক্ষেত্রে পবিত্র সুন্নত মুবারক উনার ইত্তিবা অর্থাৎ পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমা শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াস শরীফ উনাদের মধ্যে বর্ণিত নেক আমলগুলো করতে হবে। মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, পবিত্র আশূরা শরীফ উনার সাথে আক্বীদা ও আমল দুটি বিষয়ই জড়িত রয়েছে। যেমন আক্বীদা সম্পর্কিত বিষয়গুলো হলো- অনেকে ক্বিল্লতে ইলিম ও কিল্লতে ফাহাম তথা কম জ্ঞান ও কম বুঝের কারণে পবিত্র আশূরা শরীফ উনার আলোচনায় হযরত নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের ও হযরত রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের এবং হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের সম্পর্কে মনগড়া ও বানানো সমালোচনা বা দোষ-ত্রুটি বর্ণনা করে থাকে। নাঊযুবিল্লাহ! নাঊযুবিল্লাহ! নাঊযুবিল্লাহ! যেমন, তারা বলে থাকে যে, “পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিনে হযরত আদম আলাইহিস সালাম উনার এবং অনেক হযরত নবী ও রসূল আলাইহিমুস সালামগণ উনাদের গুনাহখতা মাফ করা হয়েছে। নাঊযুবিল্লাহ! নাঊযুবিল্লাহ! নাঊযুবিল্লাহ! অথচ একথা বলা ও এরূপ আক্বীদা পোষণ করা কাট্টা কুফরীর অন্তর্ভুক্ত। কেননা সম্মানিত আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াত উনাদের আক্বীদা হচ্ছেন- “সকল হযরত আম্বিয়া আলাইহিমুস সালাম উনারা মা’ছূম বা নিষ্পাপ।” সুবহানাল্লাহ! মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, পবিত্র আক্বাইদ শরীফ সম্পর্কিত কিতাবে উল্লেখ আছে, “সকল হযরত আম্বিয়া আলাইহিমুস সালাম উনারা ছগীরা, কবীরা, কুফরী, শিরকী এবং সমস্ত প্রকার অপছন্দনীয় কাজ হতেও পবিত্র।” সুবহানাল্লাহ! (পবিত্র আক্বাইদে নসফী শরীফ) মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, পবিত্র আশূরা শরীফ উনার আলোচনায় অনেকে এও বলে থাকে যে, ‘বিশিষ্ট ছাহাবী, আমীরুল মু’মিনীন হযরত মুআবিয়া রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি ইয়াযীদকে ক্ষমতা দিয়ে রাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছেন।’ নাঊযুবিল্লাহ! নাঊযুবিল্লাহ! নাঊযুবিল্লাহ! অথচ আমীরুল মু’মিনীন হযরত মুআবিয়া রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি শুধু সম্মানিত ছাহাবীই নন; বরং জলীলুল ক্বদর কাতিবে ওহী ও গুপ্তভেদ জাননেওয়ালা ছাহাবী। সুবহানাল্লাহ! আর পবিত্র শরীয়ত উনার ফতওয়া মতে- হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের কারো সম্পর্কে কোনো প্রকার সমালোচনা করা, বা কোনো প্রকার দোষারোপ করা কাট্টা কুফরী। উল্লিখিত প্রতিটি বিষয়েই ‘মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ ও দৈনিক আল ইহসান শরীফ’ উনাদের মধ্যে দলীলভিত্তিক বিস্তারিত আলোচনা রয়েছে; তা পাঠ করে সবাইকে আক্বীদা বিশুদ্ধ করতে হবে। মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, আর সম্মানিত পবিত্র আশূরা শরীফ উনার আমলগুলো হলো- ১. পরিববার-পরিজনের জন্য সাধ্যমত ভালো খাবারের ব্যবস্থা করা। ২. পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিনে গোসল করা। ৩. চোখে ইছমিদ (মেশক মিশ্রিত) সূরমা দেয়া অথবা যে কোনো সুরমা দেয়া। ৪. ইয়াতীমের মাথায় হাত বুলানো। ৫. গরিব-মিসকীনকে পানাহার করানো। ৬. নয় ও দশ অথবা দশ ও এগারো তারিখ দুটি রোযা রাখা। ৭. রোযাদারকে ইফতারী করানো। উল্লিখিত প্রতিটি আমলই খাছ সুন্নত মুবারক উনার অন্তর্ভুক্ত। মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি সম্মানিত হাদীছ শরীফ উনার বরাত দিয়ে বলেন, যারা পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন রোযা রাখবে, তারা পবিত্র আশূরা শরীফ উনার রাত্রিতে ভালো খাবে। পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার হিসেবে রাত্রি আগে আসে আর দিন পরে আসে। সে হিসেবে এবছর আজ দিবাগত রাতটি হচ্ছেন পবিত্র আশূরা শরীফ উনার রাত্রি। আর আগামীকাল ইয়াওমুল আরবিয়া (বুধবার) দিনটিই হচ্ছেন পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন। এদিনে রোযা রাখলে ষাট (৬০) বছর দিনে রোযা রাখার ও রাতে ইবাদত করার ফযীলত হাছিল হয় এবং বিগত এক বছরের গুনাহ ক্ষমা করা হয়। সুবহানাল্লাহ! মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, কাজেই প্রত্যেক বান্দা-বান্দী ও উম্মতের জন্য দায়িত্ব কর্তব্য হলো, পবিত্র আশূরা শরীফ উপলক্ষে আক্বীদা বিশুদ্ধ করে ও সংশ্লিষ্ট আমলগুলো করে মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের খাছ রেযামন্দি মুবারক হাছিলের কোশেশ করা।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে