পবিত্র ‘ঈমানী কুওওয়াত’ উনার বৃদ্ধির জন্য দরকার নিয়মিত ক্বলবী জিকির করা


বর্তমান সময়ে মুসলমানদের চেপে ধরেছে কাফির-মুশরিকরা। কিন্তু মুসলমানরা কাফির-মুশরিকদের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিতে পারছে না, জবাব দিতে পারছে না। এর মূল কারণ হচ্ছে বর্তমানে মুসলমানদের ঈমানী শক্তি বা কুওওয়াত শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে। মুসলমানগণ চাইলেও কাফিরদের বিরুদ্ধে কিছু করতে পারছে না।
আসলে একজন মুসলমান কখন গায়ের শক্তিতে চলতে পারে না, মুসলমানগণ হচ্ছে ঈমানী শক্তিতে বলীয়ান। অতিতে এ বিষয়টি দেখা গিয়েছে হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণ উনাদের মধ্যে। উনারা ঈমানী কুওওয়াতে ছিলেন সুদৃঢ় । এ কারণেই উনারা অতি অল্প সংখ্যক হয়েও অধিক সংখ্যক কাফিরের উপর বিজয় লাভ করেছিলেন। সুবহানাল্লাহ!
কিন্তু বর্তমানে মুসলমানদের অবস্থা হয়েছে ঠিক উল্টো। মুসলমানরা সংখ্যায় অনেক বেশি, কিন্তু এত অধিক সংখ্যক হয়েও তারা এখন স্বল্প সংখ্যক কাফিরদের সাথে পারছে না, নাজেহাল হচ্ছে। নাউযুবিল্লাহ!
এর মূলকারণ বর্তমানে মুসলমানদের ঈমানী কুওওয়াত বা ঈমানী শক্তি নেই। আর সেই ঈমানী শক্তি বৃদ্ধির করার একমাত্র উপায় হচ্ছে কোনো হক্কানী ওলীআল্লাহ উনার নিকট বাইয়াত হয়ে ক্বলবী জিকির করা, এতেই ঈমানী কুওওয়াত অর্জন করা সম্ভব। আর ঈমানী কুওওয়াত অর্জন হলেই কেবল কাফিরদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নেয়া সম্ভব, অন্যথায় নয়।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে