পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমা শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দৃষ্টিতে পবিত্র মীলাদ শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াম শরীফ উনাদের সঠিক ও গ্রহণযোগ্য ফায়ছালা (১) ফতওয়া বিভাগ- ‘গবেষণা কেন্দ্র’ মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ প্রথম ভাগ- আক্বাঈদ


আক্বাঈদে আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াত উনার দৃষ্টিতে-
নুরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বেমেছাল ফাযায়িল-ফযীলত, মর্যাদা-মর্তবা ও পবিত্রতা মুবারক সম্পর্কিত ছহীহ বর্ণনা।

খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার অসংখ্য অগণিত শুকরিয়া, যিনি উনার হাবীব, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে অশেষ বা সীমাহীন তথা বেমেছাল ফাযায়িল-ফযীলত মুবারক, মর্যাদা-মর্তবা মুবারক ও পবিত্রতা হাদিয়া করেছেন। অর্থাৎ আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ফাযায়িল-ফযীলত মুবারক, মর্যাদা-মর্তবা মুবারক উনাকে মাখলূক্বাতের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উঁচু মর্যাদাসম্পন্ন করে দিয়েছেন।
এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন তিনি পবিত্র কালাম পাক উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন- ور فعنا لك ذكر ك
অর্থাৎ “(হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) আমি আপনার পবিত্র যিকির বা মর্যাদা-মর্তবা মুবারক উনাকে সমুন্নত করে দিয়েছি।” (পবিত্র সুরা আলাম নাশরাহ শরীফ, পবিত্র আয়াত শরীফ)
আর এ কারণেই কোন হযরত নবী আলাইহিস সালাম উনাকে পবিত্র নুবুওওয়াত উনার স্বীকৃতি দেয়া হয়নি এবং কোন হযরত রসূল আলাইহিস সালাম উনাকে পবিত্র রিসালত উনার স্বীকৃতি দেয়া হয়নি ততক্ষণ পর্যন্ত, যতক্ষণ পর্যন্ত উনারা আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত রিসালত ও নুবুওওয়াত মুবারক উনার প্রতি ঈমান প্রকাশ না করেছেন। সুবহানাল্লাহ!
এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার পবিত্র কালাম পাক উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন-
واذ اخذ الله ميثاق النبين لـما اتيتكم من كتاب وحكمة ثم جاءكم رسول مصدق لـما معكم لتؤمنن به ولتنصرنه.
অর্থ : মহান আল্লাহ পাক তিনি সকল হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস্ সালামগণ উনাদের থেকে ওয়াদা নিয়েছেন যে, আপনাদেরকে আমি এ শর্তে কিতাব মুবারক ও হিকমত মুবারক হাদিয়া করলাম যে, আপনাদের কিতাব মুবারকগুলোকে সত্যে প্রতিপাদন (সত্যায়ন) করার জন্যে একজন সম্মানিত রসূল আগমন করবেন, তখন আপনারা উনার প্রতি ঈমান আনবেন এবং উনার খিদমত মুবারক উনার আঞ্জাম দিবেন।” (পবিত্র সূরা আলে ইমরান শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৮১)
আর তাই আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হচ্ছেন সমস্ত হযরত নবী আলাইহিমুস সালামগণ উনাদের নবী ও সমস্ত হযরত রসূল আলাইহিমুস সালাগণ উনাদের রসূল। সমস্ত হযরত নবী রসূল আলাইহিমুস সালামগণ উনাদের উম্মতগণ উনাদের পবিত্র কালিমা শরীফ ছিল আলাদা আলাদা যেমন- লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু আদমু ছফীউল্লাহ আলাইহিস সালাম, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু নূহু নাজীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ইব্রাহীমু খলীলুল্লাহ আলাইহিস সালাম, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুসা কালীমুল্লাহ আলাইহিস সালাম, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু দাঊদু খলীফাতুল্লাহ আলাইহিস সালাম ও লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ঈসা রুহুল্লাহ আলাইহিস সালাম। পক্ষান্তরে সকল হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস্ সালাম উনারাসহ সমস্ত মাখলূক্বাতের পবিত্র কালিমা শরীফ হচ্ছে লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহম্মাদুর রসূলুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। সুবহানাল্লাহ!
(ইনশাআল্লাহ চলবে)

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

  1. এক দিরহাম যে খরচ করিবে,
    বন্ধু সে আমার হবে;
    ছিদ্দীকে আকবর আলাইহিস সালাম কহিলেন,
    মীলাদুন নবী’র প্রশংসা রচিলেন।

    আফদ্বালুন নাছ, বা’দাল আম্বিয়া হযরত ছিদ্দীকে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, যে ব্যক্তি মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উপলক্ষে এক দিরহাম খরচ করবে, সে জান্নাতে আমার বন্ধু হিসেবে থাকবে। সুবহানাল্লাহ! (আন নি’য়ামাতুল কুবরা আলাল আলাম)

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে