পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস উনার প্রথম ১০ দিনের ইবাদত অশেষ ফযীলত লাভের মহান উপলক্ষ্য


আরবী পবিত্র যিলক্বদ শরীফ মাস উনার পরই শুরু হবে পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস। আর এ পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাসটি অত্যন্ত ফযীলতপূর্ণ একটি মাস। এ মাসের প্রথম দশদিন হলো বান্দা-বান্দির জন্য অশেষ নিয়ামত তথা অজস্র রহমত, বরকত, সাকিনা লাভের মহান এক উপলক্ষ্য। আমাদের প্রাণপ্রিয় নবীজি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনি পর্দার আড়াল মুবারক হওয়ার আগে জীবনে যে আমল কখনো ছাড়েননি তন্মধ্যে পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ উনার দশ দিনের আমল। সুবহানাল্লাহ!
তাই বান্দা-বান্দি অনায়াসে এ পবিত্র দশদিন ও দশ রাতসমূহকে যথাযথ মূল্যায়নের মাধ্যমে হাছিল করতে পারবে অসংখ্যা আমলের ফযীলত।
একজন মুসলমান তার পক্ষে কখনো একাধারে একবছর রোযা রাখা সম্ভব নয়, আবার কখনো একাধারে ৮৩ বছর রাত জেগে ও ইবাদত করা সম্ভব নয়। অথচ সম্মানিত ও পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ উনার দশ রাত্রির ইবাদত করা ও দিনে রোযা রাখার মাধ্যমে অনায়াসে একজন মুসলমানের পক্ষে এসব ফযীলত হাছিল করা সম্ভব হচ্ছে। অর্থাৎ কেউ যদি এ দশদিন রোযা রাখে, আর দশ রাত ইবাদত করে তাহলে সে প্রত্যেকটি রোযার বিনিময়ে একবছর করে রোযা রাখার ফযীলত পাবে, এবং এ দশ রাতের প্রত্যেকটি রাতের ইবাদত পবিত্র শবে ক্বদর রাতের ন্যয় ফযীলত লাভ করবে। সুবহানাল্লাহ! এছাড়া মহান আল্লাহ পাক উনার নিকট সবচেয়ে প্রিয় হলো এ দশ রাত্রি বা দশ দিনের ইবাদত। সুবহানাল্লাহ।
কাজেই সমস্ত মুসলমানদের উচিৎ সম্মানিত যিলহজ্জ শরীফ মাস উনার প্রথম দশদিনকে যথাযথভাবে মূল্যায়ন করে মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের প্রিয় আমলটুকু করে রাত জেগে ইবাদত ও দিনে রোযা রেখে অসংখ্য ফযীলত অর্জন করে উনাদের হাক্বীক্বী রেযামন্দি সন্তুষ্টি মুবারক অর্জন করা।
মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাদের সহ সমস্ত মুসলমানদের এ দশ রাতের যথাযথ হক্ব আদায় করার তাওফিক এনায়েত করুন। আমীন!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে