পবিত্র লাইলাতুম মুবারাকা বা শবে বরাত শরীফ সম্পর্কে বর্ণিত একটি হাদীছ শরীফ; যা ছহীহ হওয়ার ব্যাপারে সকলেই একমত


পবিত্র লাইলাতুল বরাত শরীফ প্রসঙ্গে অসংখ্য ছহীহ হাদীছ শরীফ বর্ণিত আছে। এত ব্যাপক সংখ্যক বর্ণনার ফলে লা’মাযহাবীদের গুরুরাও পবিত্র হাদীছ শরীফগুলোকে ছহীহ মেনে নিয়েছে। তারপরও কিছু কুয়োর ব্যাঙ সালাফী, লা’মাযহাবীরা পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার উছূল সম্পর্কে অজ্ঞ হওয়ার কারণে ছহীহ হাদীছ শরীফসমূহের বিরোধিতা করে থাকে। পবিত্র লাইলাতুল বরাত শরীফ সম্পর্কে একটি পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার বিরোধিতার দাঁতভাঙ্গা জবাব উল্লেখ করা হলো-
পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত আছে,
عن حضرت ابى موسى الاشعرى رضى الله تعالى عنه عن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال ان الله تعالى ليطلع فى ليلة النصف من شعبان فيغفر لجميع خلقه الا لمشرك او مشاحن رواه ابن ماجه ورواه احمد. عن عبد الله بن عمرو بن العاص رضى الله تعالى عنه وفى رواية الا اثنين مشاحن وقاتل نفس
অর্থ: “হযরত আবু মুসা আশয়ারী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার থেকে বর্ণনা করেন, তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, অর্ধ শা’বান উনার রাত্রি তথা পবিত্র লাইলাতুল বরাতে মহান আল্লাহ পাক তিনি স্বয়ং নাযিল হন (কুদরত মুবারক প্রকাশ করেন) এবং উনার সকল সৃষ্টিকে ক্ষমা করে দেন; তবে মুশরিক এবং বিদ্বেষভাবাপন্ন ব্যক্তিদেরকে ক্ষমা করেন না। আর হযরত ইমাম আহমদ রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি এটাকে হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর ইবনুল আছ রদ্বিয়াল্লাহ তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণনা করেছেন। আর উনার অপর এক রেওওয়ায়েত রয়েছে, দু’ব্যক্তি ব্যতীত। যথা- বিদ্বেষভাবাপন্ন ব্যক্তি এবং মানুষ হত্যাকারী ব্যতীত সকলকেই ক্ষমা করা হয়।” (ইবনে মাজাহ পৃষ্ঠা ১০১: হাদীছ ১৩৯০, বায়হাকী শুয়াইবুল ঈমান ৩/৩৮২: হাদীছ ৩৮৩৫, মিসবাহুল জুজাহ ১/৪৪২: হাদীছ ৪৮৭, মিশকাতুল মাছাবীহ ১১৫ পৃষ্ঠা: হাদীছ ১৩০৬, আত তাগরীব ওয়াত তারহীব ৪/২৪০, কানযুল উম্মাল ১২/৩১৫: হাদীছ ৩৫১৮২, মাযমাউয যাওয়াইদ ৮/৬৫: হাদীছ ১২৯৬০, জামেউস ছগীর : হাদীছ ২৭০০, ফাযায়েলে ওয়াক্ত লি বায়হাকী ১/১৩২: হাদীছ ২৯, জামিউল মাসানিদ ওয়াস সুনান লি ইবনে কাছীর : হাদীছ ১৩০৭৬)
উক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার সনদ নিম্নরূপ:
১) হযরত আবু মুসা আশয়ারী রদ্বিয়াল্লাহু আনহু- তিনি ছিলেন বিখ্যাত ফক্বীহ ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু আনহু।
২) হযরত দ্বাহাক বিন আব্দুর রহমান ইবনে আয়যব রহমতুল্লাহি আলাইহি- হযরত ইবনে হাজার আসকালানী রহমতুল্লাহি তিনি বলেন, তিনি ছিলেন তৃতীয় তবকার ছেক্বাহ রাবী। এছাড়া তিনি একজন তাবিয়ীও ছিলেন। (তাহযীবুত তাহযীব ৪/৩৯২, মিযানুল ইতিদাল ২/৩২৪)
৩) হযরত দ্বাহাক বিন আয়মন রহমতুল্লাহি আলাইহি- হযরত ইবনে হাজার আসকালানী রহমতুল্লাহি তিনি বলেন, তিনি অপরিচিত। (তাহযীবুত তাহযীব ৪/৪৮৯)
৪) হযরত ওলীদ বিন মুসলিম আল কুরাশী রহমতুল্লাহি আলাইহি- হযরত ইবনে সা’দ রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি উনার সম্পর্কে বলেন, তিনি হচ্ছেন নির্ভরযোগ্য এবং অধিক হাদীছ শরীফ বর্ণনাকারী। (তাহযীবুত তাহযীব ১১/১৩৪)
৫) হযরত রাশিদ ইবনু সায়ীদ রহমতুল্লাহি আলাইহি- উনার সম্পর্কে হযরত ইবনে হাজার আসকালানী রহমতুল্লাহি তিনি বলেন, তিনি ছিলেন দশম তবকার ছিকাহ রাবী।” (তাহযীবুত তাহযীব ৩/১৯৬)
সালাফীরা উক্ত সনদের তৃতীয় বর্ণনাকারী হযরত দ্বাহাক বিন আয়মান রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার কারণে পবিত্র হাদীছ শরীফখানা অস্বীকার করতে চায়। এখানে ফিকিরের বিষয় হচ্ছে উক্ত রাবী তিনি হযরত ইবনে হাজার আসকালানী রহমতুল্লাহি উনার কাছে অপরিচিত হলেও ছিহাহ সিত্তার ইমাম হযরত ইবনে মাজাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার কাছে অপরিচিত ছিলেন না। হযরত ইবনে মাজাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার বিলাদত শরীফ ২০৯ হিজরীতে আর হযরত ইবনে হাজার আসকালানী রহমতুল্লাহি উনার বিলাদত ৮৫২ হিজরীতে। সুতরাং (৮৫২-২০৯)= ৬৪৩ বছর আগের ইমাম হযরত ইবনে মাজাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার কাছে উক্ত রাবীর খবর ইবনে হাজার আসকালানী রহমতুল্লাহি থেকে ভালো থাকার কথা। সুতরাং উক্ত রাবীকে ঢালাওভাবে মাজহুল বা অপরিচিত বলা মোটেও ঠিক হবে না।
উক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ সম্পর্কে লা’মাযহাবীদের মুরুব্বী আব্দুর রহমান মোবারকপুরী উল্লেখ করেছে,
رواه ابن ماجه من حديث ابي موسي الاشعري باسناد لا بأس به
অর্থ: “ইমাম হযরত মুনযির রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, উক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফখানা ইমাম হযরত ইবনে মাজাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি হযরত আবু মুসা আশয়ারী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণনা করেন। উক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফের সনদটির মধ্যে কোনো অসুবিধা নেই।” (তুহফাতুল আহওয়াজী ৩/৪৪১)
তাছাড়া উক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ কমপক্ষে ১০টি সনদে বর্ণিত হয়েছে। যা পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাকে “শাহেদ হাদীছ শরীফ” হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করেছে। এছাড়া ‘মুতাবে’ সনদেও পবিত্র হাদীছ শরীফ বর্ণিত আছে।
সালাফী, লা’মাযহাবীদের অন্যতম পূজনীয় নাসির উদ্দীন আলবানী সে উক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ সম্পর্কে বলেছে,
ورواه ابن ماجه بلفظه من حديث أبي موسي الاشعري : صحيح لغيره
অর্থ: হযরত ইবনে মাজাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার কর্তৃক সঙ্কলিত হযরত আবু মুসা আশয়ারী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার সূত্রে বর্ণিত পবিত্র হাদীছ শরীফখানা ছহীহ লি গাইরিহী। (দলীল: ছহীহ আত তারগীব ওয়াত তারহীব ৩ খন্ড: হাদীছ নং ২৭৬৮)
ছহীহ লিগাইরিহীর অর্থ: এটা হাসান লিযাতিহী হাদীছ শরীফ উনার অনুরূপ। ছহীহ হাদীছ শরীফ উনার কোনো রাবীর মধ্যে স্মরণ শক্তি কিছুটা কম থাকে। তবে অন্যান্য উপায়ে এবং অধিক রিওয়ায়েত দ্বারা পূরণ হয়ে যায়। মোট কথা, উহার সমর্থনে বহু রিওয়ায়েত বর্ণিত থাকায় তা ত্রুটি মুক্ত হিসেবেই গণ্য। এরূপ পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাকে ছহীহ লিগাইরিহী বলে। (তাদরীবুর রাবী, মিজানুল আখবার)
লা’মাযহাবীদের মুরুব্বীরাই উক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাকে ছহীহ বলে উল্লেখ করেছে এবং বলেছে সনদে কোনো অসুবিধা নেই, তাহলে এখন কুয়ার ব্যাঙ লা’মাযহাবীরা কোন্ সাহসে এই পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার বিরোধিতা করে?

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে