পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন নতুন কোনো বিষয় নয়, বরং আজকের ঘোর বিরোধীদের পূর্বপুরুষেরাই এ দিবস পালনের ফযীলত বর্ণনা করেছেন


আজ থেকে ১০০ বছর আগেও পবিত্র মক্কা শরীফ ও পবিত্র মদীনা শরীফ উনাদের সম্মানিত ইমাম-খতীবগণ উনারা পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ অর্থাৎ পবিত্র ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অত্যন্ত জওক শওকের সাথে পালন করতেন এবং কেউ তার বিরুদ্ধে বললে তাকে মুনাফিক, কাফির বলে ফতওয়া দিতেন।
শুধু তাই নয়, আজ থেকে ১০০ বছর আগে দেওবন্দীদের কেন্দ্রীয় আলিমগণও পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করতো এবং এ উপলক্ষে খুশি প্রকাশ করলে বিনা হিসেবে জান্নাতে যাওয়ার কারণ বলে ফতওয়া দিয়েছে। এসব দুর্লভ দলিলসমূহ একত্রে একটি বইতে পাওয়া যায়। বইটির নাম “আল মুহান্নাদ আলাল মুফান্নাদ”। বইটির লেখক দেওবন্দের র্শীষস্থানীয় আলিম এবং আবু দাউদ শরীফের ব্যাখ্যাগ্রন্থ ‘বাজলূল মাজহুদ কী হল্লি আবু দাউদ’র বিখ্যাত লেখক মাওলানা খলীল আহমাদ শাহরানপুরী। বইটিতে পবিত্র মক্কা শরীফ ও পবিত্র মদীনা শরীফ উনাদের শীর্ষস্থানীয় সম্মানিত ইমাম-খতীবগণ উনাদের স্বহস্তে লিখিত স্বীকৃতি দেয়া আছে। বইটির বাংলাভাষায় অনুবাদও পাওয়া যায়।
এখন কেউ বলতে পারে, তাহলে পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালনের বিষয়টি পরিবর্তন হলো কিভাবে? এর জবাব হচ্ছে, ১৯২৫ সালে ইহুদী বংশোদ্ভূত মরুদস্যু সউদ পরিবার কুচক্রী ব্রিটিশদের সহায়তায় জাজিরাতুল আরবের ক্ষমতার মসনদে বসে অনেক কিছুই পরিবর্তন করেছে। যেমন: জাজিরাতুল আরবের নাম পরিবর্তন করে নিজ পরিবারের নাম অনুসারে ‘সউদী আরব’ নাম রাখে। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত লা’নতপ্রাপ্ত ‘নজদ প্রদেশ’কে সউদী আরবের রাজধানী বানায় এবং নাম পরিবর্তন করে ‘রিয়াদ’ রাখে। পবিত্র মক্কা শরীফ ও পবিত্র মদীনা শরীফ উনাদের ৯৫ ভাগ ঐতিহাসিক স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলে। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বংশধর তথা হযরত আহলে বাইত আলাইহিমুস সালাম ও হযরত আওলাদে রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদেকে ও হযরত ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদেরদের বংশধরদের অনেককে শহীদ করে, হক্ব আলিম-উলামাদের শহীদ করে। পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ আনুষ্ঠানিক উদযাপন বন্ধ করে দেয়। সউদী ওহাবী শাসকদের পেট্রো ডলারের ফাঁদে পড়ে অনেক বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও পরবর্তীতে জওক-শওকের সাথে পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালনের ঐতিহ্য থেকে দূরে সরে আসে। আর এভাবেই আস্তে আস্তে বন্ধ হয়ে হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু আনহুম উনাদের দ্বারা জারিকৃত পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করার এক মহা ফযীলতপূর্ণ, বরকতপূর্ণ আমল। নাউযুবিল্লাহ!

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে