পর্দার রকমফের ও ভ্রান্ত ধারণা


স্বেচ্ছারিতা মানুষের একটি সহজাত প্রবৃত্তি। এই স্বেচ্ছাচারিতার চরম রূপ প্রকাশ পেয়েছে নমরূদ ও ফেরাউনদের মাঝে। এই কাফিররাতো নিজেদেরকে ‘আল্লাহ’ দাবি করে বসেছিল। নাঊযুবিল্লাহ! এই স্বেচ্ছাচারিতা থেকে বেরিয়ে মহান আল্লাহ পাক উনার নিকট পরিপূর্ণভাবে আত্মসমর্পণ করাকে বলে ইসলাম। যদিও আজ সেই ইসলামের নামেই তৈরি হয়েছে ৭২টি বাতিল ফিরক্বা। আর একটি মাত্র ফিরক্বা রয়েছে মহান আল্লাহ পাক উনার নির্দেশিত হক্ব পথে। এটা হলো আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াত। তবে সমস্যা হলো- এই আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের দলের মধ্যেও বর্তমানে ঢুকে পড়েছে নানা ভ্রান্ত মত ও পথ।মুসলিম নারীগণের পর্দা ফরয। গৃহাভ্যন্তরে নারীদের থাকাটা উত্তম পর্দা। প্রয়োজনে ঘরের বাইরে যেতে হলে এমনভাবে পর্দা করতে হবে যেন একটি চুলও কোনো বেগানা পুরুষ দেখতে না পায়। কিন্তু হায়! এখন পর্দা- ফ্যাশনের রূপ নিয়েছে। শরীরের সাথে লেগে থাকে রঙিন লম্বা গাউন, স্কার্ফ ও সুন্দর স্যান্ডেল। কখনো মুখম-ল খোলা আবার কখনো চোখ খোলা। অথচ এই পোশাক নারীদের আরো আকর্ষণীয় করে উপস্থাপন করছে। এদিকে পর্দার উদ্দেশ্যেই অনেক বাঙালি রমনী শাড়ি পরে মাথায় একটি কালো টুপি পরে। অর্থাৎ চুলের পর্দা করে। মুখম-ল ও শরীরের অংশবিশেষ খোলা রেখে মাথায় টুপি বা রুমাল পরা হাস্যকর নয় কী?
আসলে বর্তমানে দ্বীন ইসলাম সম্পর্কে বিভ্রান্তিপূর্ণ ব্যাখ্যার কারণে মুসলমানগণ বিভ্রান্ত।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

  1. সুন্দর হয়েছে নিয়মিত পোষ্ট করলে আরো ভালো হবে Broken Heart

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে