পাকিস্তান সরকার স্কুলে পবিত্র কুরআন শরীফ শিক্ষা বাধ্যতামূলক করেছে, আমাদের দেশে নয় কেন?


পাকিস্তানের সকল সরকারি স্কুলে পবিত্র কুরআন শিক্ষা দেয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মুহম্মদ বলিগুর রহমান বলেছেন, সকল পাবলিক স্কুলে শিশু শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের নাজেরা (দেখে দেখে) কুরআন শিখানো হবে। আর ৬ষ্ঠ শ্রেণী থেকে ১০ শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের অর্থসহ পুরো কুরআন শিক্ষা দেয়া হবে। খবর: নিউজ নাইন২৪ডটকম

পাকিস্তান যেমন একটি ইসলামী রাষ্ট্র, বাংলাদেশও তাই। পাকিস্তানের মতো বাংলাদেশের মানুষও ধর্মপ্রাণ ও খোদাভীরু। শুধু তাই নয় বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে দ্বিতীয় মুসলিম প্রধান দেশ হিসেবে মশহুর। এদেশের শাসকশ্রেণীও মুসলমান এবং ইসলাম বান্ধব সরকার হিসেবে আত্মস্বীকৃত। তাই যদি হয়, তাহলে বাংলাদেশের স্কুলগুলোতে পবিত্র কুরআন শরীফ শিক্ষা বাধ্যতামূলক কেন হবেনা? মুসলমানদের যিনি সর্বশ্রেষ্ঠ ও একমাত্র আদর্শ এবং অনুসরনীয় আখেরী নবী হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্পূর্ণ পবিত্র জীবনী মুবারক কেন উচ্চমাধ্যমিক শ্রেণী পর্যন্ত সিলেবাসে অন্তর্ভূক্ত থাকবে না? পাকিস্তান বর্তমান সরকার শুধু মুখে মুখে নয় তারা কাজে প্রমাণ দিয়েছে যে তাদের সরকার ইসলাম বান্ধব এবং মুসলমানদের সরকার।

বলাবাহুল্য, পাকিস্তার সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় স্কুলে পবিত্র কুরআন শরীফ শিক্ষা বাধ্যতামূলক বলে সম্প্রতি যে ঘোষণা দিয়েছে তা হয়তো আমাদের দেশেই অনেক আগেই চালু হতো যদি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেঁচে থাকতেন। কেননা, উনার চেতনায় ও বিশ্বাস মহান আল্লাহ পাক উনার প্রতি আনুগত্যতা এবং নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি মুহব্বত ছিলো অকৃত্রিম।

আমরা আশা করছি, বর্তমান ক্ষমতাশীন সরকার বঙ্গবন্ধু আদর্শের অনুসারি হিসেবে দ্বীন ইসলাম ও মুসলমানদের প্রতি কৃত্রিমতা প্রদর্শন করবেনা। সূতরাং  মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ হিসেবে আমাদের দেশেও স্কুলে পবিত্র কুরআন শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে হবে।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে