প্রত্যেক মুসলমান পুরুষ ও মহিলা সকলের জন্যই ফরযে আইন হচ্ছে- যথাযথভাবে পাঁচ ওয়াক্ত পবিত্র ছলাত বা নামায যথা সময়ে আদায় করে নেয়া।


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘নিশ্চয়ই পবিত্র ছলাত বা নামায মু’মিনদের উপর ফরয নির্দিষ্ট সময়ে’।
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, পবিত্র ছলাত বা নামায হচ্ছেন সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার স্তম্ভ, যে ব্যক্তি পবিত্র ছলাত বা নামায আদায় করলো সে ব্যক্তি সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার স্তম্ভ ঠিক রাখলো। সুবহানাল্লাহ! আর যে ব্যক্তি পবিত্র ছলাত বা নামায তরক করলো সে তার দ্বীন ইসলাম উনারই ক্ষতি করলো। নাউযুবিল্লাহ! পবিত্র ছলাত বা নামায সম্মানিত শরীয়ত উনার একটি বুনিয়াদী ফরয ইবাদত। সুবহানাল্লাহ! যা ইহকালে গুনাহখতা ক্ষমা করার ও পরকালে জান্নাত অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার রসূল নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের খাছ রেযামন্দি বা সন্তুষ্টি মুবারক লাভ করার একটি অন্যতম মাধ্যম। সুবহানাল্লাহ!
তাই প্রত্যেক মুসলমান পুরুষ ও মহিলা সকলের জন্যই ফরযে আইন হচ্ছে- যথাযথভাবে পাঁচ ওয়াক্ত পবিত্র ছলাত বা নামায যথা সময়ে আদায় করে নেয়া। অর্থাৎ কোনো ক্রমেই পবিত্র ছলাত বা নামায তরক না করা।
– ক্বওল শরীফ: সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম
যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইউস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যূল আউওয়াল, সুলত্বানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদে রসূল, মাওলানা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “যদি তারা মু’মিন হয়ে থাকে তবে তাদের জন্য দায়িত্ব-কর্তব্য হচ্ছে মহান আল্লাহ পাক উনাকে এবং উনার রসূল নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরকে সন্তুষ্ট করা। কেননা উনারাই সন্তুষ্টি মুবারক পাওয়ার অধিক হকদার।”
উল্লেখ্য, পবিত্র ছলাত বা নামায হচ্ছেন মহান আল্লাহ পাক উনাকে এবং উনার রসূল নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সন্তুষ্ট করার সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বোত্তম মাধ্যম। তাই পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মধ্যে পবিত্র ছলাত বা নামাযের ব্যাপারে অত্যধিক গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আমার বান্দাগণের মধ্যে যাঁরা পবিত্র ঈমান এনেছেন, উনাদেরকে আপনি বলুন- উনারা যেন পবিত্র ছলাত বা নামায আদায় করেন এবং আমি তাঁদেরকে যা দান করেছি তা হতে গোপনে ও প্রকাশ্যে সৎ পথে ব্যয় করে ঐদিন আসার আগে, যে দিন কোনো বেচা-কেনা নেই এবং বন্ধুত্বও নেই।”

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি আরো ইরশাদ মুবারক করেন, “যখন তোমরা পবিত্র ছলাত বা নামায আদায় করো, তখন দাঁড়িয়ে, বসে ও শোয়া অবস্থায় মহান আল্লাহ তায়ালা উনাকে স্মরণ করো। অতঃপর যখন বিপদ মুক্ত হয়ে যাও, তখন পবিত্র ছলাত বা নামায ঠিক করে পড়। নিশ্চয়ই পবিত্র ছলাত বা নামায মু’মিনগণের উপর ফরয নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে।”

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, সর্বাধিক হাদীছ শরীফ বর্ণনাকারী ছাহাবী হযরত আবূ হুরাইরাহ রদ্বিয়াল্লাহু আনহু উনার থেকে বর্ণিত। সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরুম মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- পাঁচ ওয়াক্ত পবিত্র ছলাত বা নামায, এক জুমুয়াহ হতে অপর জুমুয়াহ পর্যন্ত ও এক পবিত্র রমাদ্বান শরীফ হতে অপর রমাদ্বান শরীফ পর্যন্ত কাফফারা হয় সেসকল গুনাহের জন্য, যা ইহার মধ্যবর্তী সময়ে সংঘটিত হয়, যখন কবীরাহ গুনাহসমূহ থেকে বেঁচে থাকা হয়। সুবহানাল্লাহ!

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, সর্বাধিক হাদীছ শরীফ বর্ণনাকারী ছাহাবী হযরত আবূ হুরাইরাহ রদ্বিয়াল্লাহু আনহু উনার থেকে বর্ণিত। সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরুম মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- আচ্ছা বলুন তো, যদি আপনাদের কারো দরজায় একটি নহর থাকে, যাতে তিনি দৈনিক পাঁচবার গোসল করেন, তার ময়লার কিছু বাকী থাকবে কি? উনারা উত্তরে বললেন, তার ময়লার কিছু বাকী থাকবে না। নূরুম মুজাস্সাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করলেন- এরূপই উদাহরণ হচ্ছে পাঁচ ওয়াক্ত পবিত্র ছলাত বা নামাযের। পবিত্র ছলাত বা নামাযের দ্বারা মহান আল্লাহ তায়ালা নামাযী ব্যক্তির গুনাহসমূহ মুছে দেন। সুবহানাল্লাহ।

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, মূল কথা হলো- পবিত্র ছলাত বা নামায সম্মানিত শরীয়ত উনার একটি বুনিয়াদী ফরয ইবাদত। যা ইহকালে গুনাহখতা ক্ষমা করার ও পরকালে জান্নাত লাভ করার একটি অন্যতম মাধ্যম। তাই প্রত্যেক মুসলমান পুরুষ ও মহিলা সকলের জন্যই ফরযে আইন হচ্ছে- যথাযথভাবে পাঁচ ওয়াক্ত পবিত্র ছলাত বা নামায যথাসময়ে আদায় করে নেয়া। অর্থাৎ কোনো ক্রমেই পবিত্র ছলাত বা নামায তরক না করা।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে