প্রসঙ্গ- পরিবেশ দূষণ ও যানজটের অজুহাতে কুরবানীর হাট ও জবাইয়ের স্থান দূরে সরিরে দেয়া: পবিত্র কুরবানী ও উনার হাট ও পশুকে ইহানত করার শামিল; যা কাট্টা কুফরী


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন,
(১) “যে ব্যক্তি মহান আল্লাহ পাক উনার নিদর্শনসমূহের প্রতি সম্মান করবে, নিশ্চয়ই তা তাদের অন্তরের তাক্বওয়া বা পবিত্রতার কারণ।” (পবিত্র সূরা হজ্জ শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৩২)
(২) “যে সকল বস্তুকে সম্মানিত করেছেন, উনাদেরকে যে ব্যক্তি সম্মান করলো, এটা তার জন্য কল্যাণ বা ভালাইয়ের কারণ।” (পবিত্র সূরা হজ্জ শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৩০)
(৩) “হে ঈমানদারগণ! তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনার শেয়ার বা নিদর্শন উনাদের, সম্মানিত হারাম মাস উনাদের, হারাম শরীফ-এ কুরবানীর জন্য নির্দিষ্ট পশু, ওই সমস্ত পশু যাদেরকে চিহ্নিত করা হয়েছে এবং ওই সমস্ত ব্যক্তি যারা মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টির জন্য হজ্জ পালন করতে যান উনাদের ইহানত বা অবমাননা করো না।” (পবিত্র সূরা মায়িদা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ২)
উপরের তিনখানা পবিত্র আয়াত শরীফ দ্বারা স্পষ্টরূপে প্রমাণ হয় পবিত্র কুরবানী উনার পশুসমূহ পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার শেয়ার বা নিদর্শন যা তা’যীম-তাকরীম করা মুসলমান উনাদের জন্য কল্যাণের কারণ এবং অবজ্ঞা করা কুফরী তথা ভয়াবহ ক্ষতির কারণ।
অথচ দেখা যাচ্ছে, বর্তমানে বাংলাদেশে পবিত্র কুরবানী উনার পশুর হাটকে খারাপ মনে করে শহর থেকে দূরে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে, কুরবানীতে পরিবেশ দূষিত হয়- এমন অজুহাতে জবাইয়ের স্থান দূরে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে অর্থাৎ নির্দিষ্ট করে দেয়া হচ্ছে। নাউযুবিল্লাহ!
যেহেতু পবিত্র কুরআন শরীফ সত্য, কুরবানী ও উনার পশু নিয়ে ইহানত বা অবজ্ঞাসূচক কিছু করা কখনোই বাংলাদেশের জন্য ভালো ফল বয়ে নিয়ে আসবে না, বরং খারাপ বা গযব বয়ে নিয়ে আসবে। নাউযুবিল্লাহ!
তাই কুরবানী হাট ও পশুকে অবজ্ঞামূলক সকল রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হঠতে হবে এবং এটা মুসলমানদের ঈমানী দাবি।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে