প্রসঙ্গ সমঅধিকার!


বর্তমান সমাজে অনেকে সমঅধিকারের কথা বলে। আসলে সমাধিকার বলতে কি বুঝায় তা আমাদের বুঝতে হবে। সমঅধিকার বলতে যার যা প্রাপ্য তাকে তা দেয়া বুঝায়।

উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় পিঁপড়া এবং হাতি। পিঁপড়ার যতটুকু খাবার প্রয়োজন তা যদি একটি হাতি কে দেয়া হয় তাহলে সে পরিমাণে খাবার দ্বারা হাতির কখনো পেট ভরবে না। ঠিক তেমনি হাতির খাবার যদি পিঁপড়া কে দেয়া হয় তা হলে পিপড়ার পক্ষে কোন দিনই সে খাবার খাওয়া সম্ভব না। অর্থাৎ এ ক্ষেত্রে যার যতটুকু খাবার প্রয়োজন তাকে ততটুকু খাবার দেয়াই সমঅধিকার।

ঠিক তেমনি নারী ও পুরুষকে মহান আল্লাহ্‌ পাক রব্বুল আলামীন আলাদা আলাদা যোগ্যতা ও ক্ষমতা দিয়ে সৃষ্টি করেছেন। সে ক্ষত্রে যার যত টুকু প্রাপ্য তাকে ততটুকু দেয়াই সমঅধিকার।

পুরুষদের মহান আল্লাহ্‌ পাক এমন ভাবে সৃষ্টি করেছেন যেন তারা ব্যবসা বাণিজ্য বা চাকুরী করতে পারে এবং শারীরিক বা কায়িক পরিশ্রম করতে পারে আর মেয়েদের এমন ভাবে সৃষ্টি করেছেন যেন তারা গৃহস্থালির যাবতীয় কাজ কর্ম করে সংসারটাকে গুছিয়ে রাখতে পারে এবং সন্তানাদিও লালন পালন করতে পারে। এভাবেই সমাজের সর্ব ক্ষত্রে একটি সামঞ্জস্যতা রক্ষা হয়।

একজন পুরুষ মহিলাদের মত কোনদিনই আদর সোহাগ দিয়ে যত্ন সহকারে সন্তানাদিকে লালন পালন করতে পারবে না যেটা মহিলাদের জন্য খুবই সহজ বিষয়। আবার মহিলারাও পুরুষের মত করে কামাই রোজগার বা পরিশ্রম করতে পারবে না। সুতরাং প্রকৃত সমঅধিকার বিষয়টি বুঝে সমাজের সমস্ত ফিতনা ফাসাদ দুর করতে হবে। প্রকৃত সমঅধিকারে মাধ্যমেই সমাজে শান্তি ফিরে আসবে।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে