ফিরে দেখা ইতিহাস: ঘাতক রাজাকার, আল-বাদর মওদুদী জামাতী, দেওবন্দী খারিজী, ওহাবী সালাফীদের দিনলিপি


ফিরে দেখা ইতিহাস: ঘাতক রাজাকার, আল-বাদর মওদুদী জামাতী, দেওবন্দী খারিজী, ওহাবী সালাফীদের দিনলিপি : ৩১শে মার্চ, ১৯৭১ ঈসায়ী
আল ইহসান ডেস্ক:
এদিন সরকারি এক হ্যান্ড আউটে প্রচার করা হয়, ‘শহরে এবং গ্রামাঞ্চলে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসায় পুনরায় অর্থনৈতিক কর্মকা- শুরু হয়েছে। দৈনিক সংবাদপত্রসমূহ তাদের নিরপেক্ষ প্রকাশনা শুরু করেছে।’ প্রকৃতপক্ষে এটি ছিলো পাকী শাসকগোষ্ঠীর নিজেদেরকে দেশপ্রেমিক হিসেবে পরিচয় দেবার কৌশলমাত্র। মূলত, তখন থেকে পূর্ব-পাকিস্তানের পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ রূপ ধারণ করে। সামরিক তৎপরতা বিস্তার লাভ করে প্রত্যন্ত অঞ্চলে।
পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী এবং তাদের এদেশীয় দালালরা বিভিন্নভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাতে থাকে। পাকিস্তান জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের সাধারণ সম্পাদক মালানা মাহমুদ এক বিবৃতিতে মুক্তিযোদ্ধাদের ভারতীয় অনুপ্রবেশকারী বলে উল্লেখ করে বলেছিল, এ ধরনের ভারতীয় অনুপ্রবেশ পাকিস্তানের সার্বভৌমত্বের প্রতি হুমকিস্বরূপ।
৩১ মার্চে পুরো এক ব্যাটালিয়ান সৈন্য, ডেসট্রয়ার, গানবোট, ট্যাংক, মর্টার নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে পূর্ব-পাকিস্তান রাইফেলস-এর চট্টগ্রাম সদর দফতরে। তিন ঘণ্টা যুদ্ধের পর পাকী সেনারা দখল করে হেড কোয়ার্টার। এ দিনই পুনরায় এক ব্যাটালিয়ন সৈন্য নিয়ে আক্রমণ করে চট্টগ্রাম রিজার্ভ পুলিশ লাইনে। এভাবেই পাকী সেনারা গুড়িয়ে দেয় চট্টগ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের সমস্ত ঘাঁটি।
(তথ্যসূত্র- উইটনেস টু সারে-ার; বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ: দলিলপত্র; দৈনিক পাকিস্তান, ১ এপ্রিল ১৯৭১ ঈসায়ী।)
Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে