বাঙালি হিন্দু মুশরিকদের নববর্ষ শুধুমাত্র বাঙালি মুসলমান নয়; বিশ্বের কোনো মুসলমানের জন্যই পালনীয় হতে পারে না


কাট্টাকাফির, মুশরিক শরৎচন্দ্রেরশ্রীকান্ত’ নামক রচনায় দেখানো হয়েছে, বাঙালি বলতে তারা শুধু মাত্র বাঙালি হিন্দুদের বুঝিয়েছে এবং মুসলমানগণের বাঙালি তথা তাদের বিপরীতে দেখিয়েছেমুশরিকদের এই মানসিকতা হালযামানায় আজও একইভাবে বিদ্যমানআর পশ্চিম বঙ্গে মুসলমানগণকে বাঙালি’ পরিচয় দিলে বা জাতিতেবাঙালি’ কথাটি লিখলে ঘোর আপত্তি করা হয়

পাঠক! এখন আপনারাই বলুন, তথা কথিত সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী (মালউনরা) যে বলে থাকে, ‘পহেলা বৈশাখ’ হচ্ছে বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্য, মালউনরা যে কতবড় মূর্খতা বলার অপেক্ষা রাখেনাকারণ বাদশাহ আকবর ফসলী সনের প্রবর্তকফসলী সনের উদ্ভব ঘটে ১৫৮৫ ঈসায়ী সনেতাহলে হাজার বছর হলো কি করে? তবে একথাটির পিছনে চক্রান্তষড়যন্ত্র লুকায়িত রয়েছেহ্যাঁ, ‘পহেলা বৈশাখে’ বাঙালি নামক হিন্দুদের ঐতিহ্য হতে পারেকারণ তারা বাঙালি বলতে আজও শুধুমাত্র হিন্দুদের বুঝিয়ে থাকেআসলে মুসলমানগণ বাংলাভাষী হিসেবে এখানে বাঙালি নতুবা তারা মুসলমান হিসেবে সারাবিশ্বেই এক জাতির অন্তর্ভুক্তনববর্ষ পালন যেহেতু মুসলমান গণের জীবন বিধান পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে নেই, তাই এটি পালন করা কোনো দেশের মুসলমানের জন্যই জায়িয নেই এবং কস্মিনকালেও তা মুসলমানগণের ঐতিহ্য হতে পারেনা

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে