বাঙ্গালি কোন স্বতন্ত্র জাতি নয় বরং সংকর জাতি !


ইনবক্সে একজনে বললো, “পহেলা বৈশাখ পালনে আর কি আসে যায়, আমরাই তো হিন্দুদের থেকে এসেছি” (নাউযুবিল্লাহ)।

তার কথার দলিল হচ্ছে, পূর্বে উপমহাদেশে ইসলাম আসার আগে হিন্দু জনপদ অর্থ্যাৎ পুন্ড্র, গৌড়, বরেন্দ্র, সমতট ইত্যাদি বাস করতো। পরবর্তীতে ইখতিয়ার মুহম্মদ বখতিয়ার খলজী তিনি এসে পাল বংশের রাজাকে পরাস্ত করে ইসলাম প্রচার করেন।

পূর্বপুরুষ হিন্দু ছিল (নাউযুবিল্লাহ)  প্রমাণ করতে এতটুকু কথাই যথেষ্ট নয়।

তাকে জানানো হলো, বঙ্গ নামের উৎপত্তি হযরত নূহ আলাইহিস সালাম উনার নাতির নামানুসারে।তাছাড়া ইখতিয়ার মুহম্মদ বখতিয়ার খিলজী তিনি এসেছেন ১২০০ সালের দিকে (source Wikipedia) অথচ ৬০০ সালের দিকে সুলতান মাহমূদ গজনবী তিনি ভারতবর্ষ জয় করেন এবং উনার সময়ও ইসলামের প্রচার প্রসার হয়।

আরো জানালাম, বাঙ্গালি স্বতন্ত্র কোন জাতি নয়, বাঙ্গালী সংকর জাতি। কারন প্রাচীনকালে বাংলা এখনকার মত একক কোন রাষ্ট্র ছিল না, তখন এদেশ ছোট ছোট বিভিন্ন অঞ্চলে বিভক্ত ছিল এবং সমস্ত অঞ্চলের শাসক যার যার মত করে শাসন করতো।
ধারণা করা হয়, বাংলাদেশে প্রথম যে জনগোষ্ঠী বসবাস শরু করে তারা হচ্ছে নিগ্রোয়েড বা অষ্ট্রালয়েড শ্রেণীর। ধীরে ধীরে এদের সাথে দ্রাবিড়, আলপিয়ান, মংগোলয়েড, নার্ডিক, আর্য ইত্যাদি গোষ্ঠী যুক্ত হয়। এছাড়াও আরব দেশের মানুষ, যারা এদেশে ব্যবস্যার উদ্দেশ্যে এসে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করে। তাদের সংমিশ্রণে বাঙ্গালি জাতির উদ্ভব । যাদ্বরুণ, এদেশের মানুষ মিশ্র অর্থ্যাৎ সাদা, কালো, শ্যামল, লম্বা, মাঝারি, বেটেঁ প্রকৃতির।
এখন কেউ যদি বলে বাঙ্গালি জাতি হিন্দুদের থেকে এসেছে’ এধরণের কথা খুব লজ্জাজনক এবং মুসলিম হিসেবেও অপমাণিত বোধের কারণ।

 

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে