বাজেটের আকার হচ্ছে ২ লাখ ২২ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা



এবারের বাজেটের আকার হচ্ছে ২ লাখ ২২ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা। এটাই হচ্ছে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় কলেবরের বাজেট। এ বাজেট চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের চেয়ে ১৬ শতাংশ বেশি। চলতি অর্থবছরে মূল বাজেটের আকার ছিল ১ লাখ ৯১ হাজার ৭৩৮ কোটি টাকা।

তাই নতুন বাজেটে আগের বাজেটের সার্বিক ঘাটতি থাকছে ৫৫ হাজার ৩২ কোটি টাকা। অর্থাৎ মোট দেশজ উত্পাদনের তুলনায় ঘাটতি ধরা হয়েছে ৪ দশমিক ৬ শতাংশ।

তবে অনুদান বাদ দিলে ঘাটতি গিয়ে পৌঁছাবে ৪৮ হাজার ৩৬২ কোটি টাকা, শতকরা হিসাবে যা ৪ শতাংশ। প্রস্তাবিত বাজেটে ছয় হাজার ৬৭০ কোটি টাকার অনুদান পাওয়া যাবে বলে ধরে নেওয়া হয়েছে।

নতুন বাজেটে অনুন্নয়নমূলক ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৩৪ হাজার ৪৪৯ কোটি টাকা। এর মধ্যে অনুন্নয়ন রাজস্ব ব্যয় ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৭১ কোটি টাকা।সরকারের অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ ২৬ হাজার ৩ কোটি টাকা ও বৈদেশিক ঋণের সুদ ১ হাজার ৭৪০ কোটি টাকা।

অনুন্নয়ন মূলধন ব্যয় ২০ হাজার ৯৭৮ কোটি টাকা, খাদ্য হিসেবে ২৬৩ কোটি টাকা এবং ঋণ ও অগ্রিম খাতে ব্যয় হবে ১৫ হাজার ৫০৪ কোটি টাকা।

প্রথ্ম পর্যায়ে ২০১২-১৩ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেট ও ২০১৩-১৪ অর্থ বছরের বাজেট উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী। দ্বিতীয় পর্যায়ে সরকারের আর্থিক প্রস্তাবাবলী কার্যকরণ ও কিছু আইন সংশোধনের জন্য বিল উপস্থাপন করবেন তিনি।

বেলা ৩টা ১০ মিনিটে সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে অধিবেশন কক্ষে প্রবেশ করেন অর্থমন্ত্রী। একই সময়ে স্পিকার এসে আসন গ্রহণ করলে কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অধিবেশন শুরু হয়।

অর্থমন্ত্রীকে বাজেট পেশের আহবান জানান স্পিকার। বেলা ৩টা ১৬ মিনিটে অর্থমন্ত্রী বাজেট পেশ শুরু করেন।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে