বাবা দিবস পালন করা যাবে?


১৭ ই রমাদ্বান শরীফ,ঐতিহাসিক বিশেষ দিবস…অনেকগুলো বিশেষ কারণ এই দিন মুবারক উনার সাথে সম্পৃক্ত। সংগতকারণেই এ দিন মুবারকটি
# আইয়্যামিল্লাহ অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক উনার বিশেষ দিন।
বাবা দিবস সেলিব্রেটকারীরা বলতো কারণগুলো কি কি? যেহেতু তোমরা দিবস সচেতন এবং কাফির মুশরিকদের প্রবর্তিত দিবস উদযাপনে বিশেষভাবে আগ্রহী! তথা কাফিরদের অনুসরণকারী, পরিণামে জাহান্নামী (তওবা না করলে)।
এতো এতো নিষেধ বাণীর মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হচ্ছে,যে – কোনভাবেই তাদের অনুসরণ করা যাবে না,তারপরো বান্দা এতোটাই নিমকহারাম,নিয়ামত মুবারকের অস্বীকারকারী অনিচ্ছাসত্ত্বে তো না বরং ইচ্ছে করেই বেশি বেশি এসব দিবসের পেছনে ছুটে! নাঊযুবিল্লাহ
মুসলিম কীভাবে ভুলে যায় তার জীবন বিধান পূর্ণাংগ,স্পষ্ট এবং নির্দিষ্ট ! ?! সে যা কিছুই করুক না কেন নিয়মের মধ্যে থেকেই করতে হবে। সম্মানিত মুসলমান উনাদের খেয়াল খুশি মতো,যা ইচ্ছা তা করার নিয়ম নেই। কেননা, মহান আল্লাহ পাক মু’মিন উনাদের জান ও মাল কিনে নিয়েছেন সম্মানিত জান্নাতের বিনিময়ে। সুবহানাল্লাহ
আর যারা খেয়াল খুশিকে প্রাধান্য দিচ্ছো তারা জেনে রেখো যে,তারা কিনে নিয়েছ দুনিয়া এবং তা জাহান্নামের বিনিময়ে!!!
রেগে যেও না,পারলে তওবা করে শুধরে যাও,তা না হলে পরে হাড়ে-গোশতে-চামড়ায় মাশুল গুনেও শেষ করতে পারবে না!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে