বাল্যবিবাহের নিষ্ঠাবান ও নিবেদিত ভক্ত রবীন্দ্রনাথ শুধু আপন তিন কন্যাকে বাল্যবিবাহই দেয়নি। দিয়েছে যথেষ্ট যৌতুকও- (১)


পাশাপাশি রবীন্দ্রনাথ শুধু আপন মেয়েদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা থেকে বঞ্চিত করেনি

নারীরা যাতে পুরুষের পাশাপাশি কাজ না করে সে প্রেসক্রিপশনও দিয়েছে।

তথাকথিত বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সার্ধশতবর্ষ বাংলাদেশ-ভারতে ৬ মে যৌথভাবে উদযাপন করা হবে। ওই অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং না এলেও বাংলাদেশে আসবেন ভারতের উপ-রাষ্ট্রপতি এম হামিদ আনছারী।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনকেন্দ্রে অনুষ্ঠাান হবে। বাংলাদেশে ৮ মে অনুষ্ঠান হওয়ার কথা থাকলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ইস্তাম্বুল সফর থাকায় অনুষ্ঠানসূচি পরিবর্তন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। সূত্র জানায়, তথ্য ও সংস্কৃতিমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ এ অনুষ্ঠান সফল করতে কাজ করছেন। গত পরশু সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব সুরাইয়া বেগমসহ ঊধ্বর্তন কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠক করেন। এ বছর রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সার্ধশতবর্ষ ঢাকা, কলকাতা ও দিল্লিতে যৌথভাবে উদযাপিত হবে।

বলাবাহুল্য এসব কর্মসূচী রবীঠাকুরের অনন্যভাবে মূল্যায়িত করেই করা হচ্ছে। এদেশের কথিত শিল্পী-সাহিত্যিক সবাই আকণ্ঠভাবে রবীন্দ্রপূজারী। কেউ কেউ বরিবাবুকে তাদের ইশ্বর বলেও সরাসরি ব্যক্ত করেছেন।

রবিবাবুকে স্মরণ করে রবিভক্তদের হাজারো কর্মসূচী এখন লাখো কর্মসূচীতে পরিণত হয়েছে। সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা এবং আর্থিক আনুকল্য হাজার গুন বেড়েছে।

এদিকে রবিভক্ত সব শিল্পী সাহিত্যিক তথা খোদ সরকার বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে কট্টর।

পাশাপাশি তারা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে নারীশিক্ষার পক্ষে প্রবলভাবে সক্রিয়। এবং পুরুষের পাশাপশি নারীদের কর্মসংস্থান করে দেয়ার জন্য কঠোর আন্দোলন রত।

কিন্তু এই তিনটি বিষয়ে রবীন্দ্রনাথ এর ভূমিকা, দর্শন ও কর্ম সম্পূর্ণ বিপরীতমুখী।

বালিকা স্ত্রী বা তিন কন্যার কাউকেই যিনি স্কুলে পাঠাননি। বাল্যবিবাহ আর যৌতুক প্রথার সমালোচনা করলেও বিয়ে করেছেন এমন একজনকে যার বয়স তখনও দশ পুরো হয়নি। নিজের তিন মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন ১৪, ১০ আর ১৩ বছর বয়সে এবং যথেষ্ট যৌতুক দিয়ে।

অপরদিকে দৃশ্যত: ২৬ বছর বয়সে রবীন্দ্রনাথ আট থেকে ১২-এর মধ্যে বালিকাবিবাহের তীব্র সমালোচনা করেছেন।

চন্দ্রনাথ বসুর ‘হিন্দু বিবাহের বয়স ও উদ্দেশ্য’ এবং ‘হিন্দুপতœী’ প্রবন্ধের মতামতের বিরোধিতা করে রবীন্দ্রনাথ বলেছেন,

দাঁত ওঠা মাত্র খুব শক্ত জিনিস খেতে দেয়া দাঁতের স্বাস্থ্যের জন্যই ভালো নয়, তেমনই যৌবন সঞ্চার হওয়ামাত্র স্ত্রী-পুরুষ সন্তানজš§দানে যোগ্য হয়ে ওঠে না।

কিš‘ ২৩ বছরের রবীন্দ্রনাথ নয় বছর নয় মাসের ভবতারিণীকে বিয়ে করেন, ২৬ বছরে প্রথম সন্তানের পিতা হন যখন স্ত্রীর বয়স ১২ বছর আট মাস।

ঠাকুর এস্টেটের কর্মচারী বেণীমাধব রায়ের মেয়ে ভবতারিণী তথাকথিত বিশ্বকবির সহধর্মিণী হয়ে নিজের নামটুকুর অধিকারও পাননি। রবীন্দ্রনাথ তার নাম পাল্টে রেখেছিলেন মৃণালিনী।

চলবে

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+