বিশ্বের খর্বতম মানুষ নেপালে


শিশুর শরীর নিয়ে বেড়ে ওঠা নেপালের ফল বিক্রেতার ছেলেকে গিনেস রেকর্ড কর্মকর্তারা বিশ্বের সবচেয়ে স্বল্পদৈর্ঘের মানুষ বলে ঘোষণা করেছে। বিশ্বের খর্বতম এ লোকটি গতকাল ১৮ বছরে পা দিয়েছে। মাগারের দৈর্ঘের মাপ ২৬.৪ ইঞ্চি। এর আগে রেকর্ড ছিল কলম্বিয়ার এডোয়ার্ড নিনো হার্নাডেজের। তার উচ্চতা ছিল ২৭ ইঞ্চি। গিনেস রেকর্ডের কর্মকর্তা মার্কো ফ্রিগাতি বিশ্ব রেকর্ডের একটি সার্টিফিকেট খগেন্দ্র থাপা মাগারের হাতে তুলে দিলে চারিদিকে আনন্দের বন্যা বয়ে যায়।

মাগারের নিজের শহর জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র পোখারের একটি হোটেলে এড অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। তার পরিবার দীর্ঘদিন ধরে এই শিরোপার দাবি করে আসছিল। কিন্তু সেগুলো প্রত্যাখ্যাত হয়, কিন্তু তার তখনো উচ্চতা বৃদ্ধির সম্ভাবনা ছিল।

তার পিতা রূপ বাহাদুর থাপা মাগার বলেন, আমার ছেলের জন্য আমি অত্যন্ত গর্বিত। অবশেষে আমাদের স্বীকৃতি মিলল। আমাদের স্বপ্ন সত্য হলো। গতকাল মাগার ও তার পরিবার প্রবল উত্তেজনার মধ্যে সাংবাদিকদের তাদের ভাড়া করা বাড়িতে আমন্ত্রন জানান। সেখানে মাগার লাফ দিয়ে রান্না করার টেবিলে উঠে সাংবাদিক ও তার পরিবারের সদস্যদের  জন্য চা তৈরি করে দেন। ১৮ বছর বয়সে পা দেয়ার জন্য উপহার গ্রহণ করেন এবং একটি খেলনা ড্রামের তালে তালে নাচেন।

মাগারের ওজন সাড়ে ৫ কিলোগ্রাম। জন্মের সময়ের ওজনের চাইতেও কম। জন্মের সময় তার ওজন ছিল ৬শ’ গ্রাম। তার বাবা জানান, সে কেন উচ্চতায় বাড়লো না, তার কোন ব্যাখ্যা তার কাছে নেই। তার ছোট ভাই স্বাভাবিকভাবে বেড়ে উঠেছে। তার বয়স ১৩।

৫ বছর ধরে  যে চিকিৎসক মাগারের চিকিৎসা করছেন তিনি জানান, তার দেহটি ৩ বছরের বাচ্চার শরীরের মতো।

সূত্র: এপি

Views All Time
2
Views Today
4
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে