বেধর্মী মহিলা নাজাতপ্রাপ্ত হওয়ার কারন!


হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনি মক্কা শরীফ বিজয়ের পর মক্কা মুয়াজ্জমার এক বিধর্মী মহিলার ঘরের দেয়ালে ঠেস দিয়ে উনার কোন এক খাদিমের সাথে কথা বলছিলেন। সেই বিধর্মী মহিলা ঠেস দেওয়া দেখে , সে হিংসা ও বিদ্বেষের বশবর্তী হয়ে ঘরের সব জানালা বন্ধ করে দিল, যেন সে হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার কন্ঠ শুনতে না পায়। সেই মুহুর্তে হযরত জিব্রাঈল আলাইহিস সালাম উনি উপস্থিত হয়ে আরয করলেন,

‘ইয়া রাসুলুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ! আল্লাহপাক জানিয়েছেন, যদিওবা এ মহিলা অমুসলিম কিন্তু আপনার শান-মান বড় মহৎ, অনেক উচ্চ। যেহেতু এ অমুসলিম মহিলার দেয়ালের সাথে আপনার পিঠ মুবারক লেগেছে, সেহেতু আমি (আল্লাহপাক) চাই না যে গৃহিনী জাহান্নামের আগুনে দগ্ধ হোক। এ মহিলাতো স্বীয় ঘরের জানালাসমূহ বন্ধ করেছে কিন্তু আমি তার অন্তরের জানালা খুলে দিয়েছি এবং এটা তার দেয়ালে আপনার ঠেস দিয়ে দাঁড়ানোর বরকতেরই ফল’।

ইত্যবসরে সেই মহিলা অস্থির হয়ে ঘর থেকে বের হয়ে আসলো এবং চিৎকার করে বললো আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি আল্লাহ ছাড়া কোন মাবুদ নেই। আরও সাক্ষ্য দিচ্ছি নিশ্চয়ই আপনি আল্লাহর রাসূল (ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)।

সুবহানাল্লাহ্

অমুসলিম বেধর্মী মহিলার ঘরের দেয়ালের সাথে হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পিঠ মুবারক লাগার কারণে সে দোযখের আগুন থেকে বেঁচে গেল। তাহলে যিনি উনাকে গর্ভাধারন করেছেন হযরত আমেনা আলাইহাস সালাম উনি কেন জান্নাতের অধিবাসী হবেন না? ওরা কত বদবখত, বেয়াদব,বেক্কল যারা হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত পিতা-মাতা আলাইহিমাস সালাম উনাদের সম্পর্কে যা-তা বলে।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে