সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দু:খিত। ব্লগের উন্নয়নের কাজ চলছে। অতিশীঘ্রই আমরা নতুনভাবে ব্লগকে উপস্থাপন করবো। ইনশাআল্লাহ।

বেপর্দা-বেহায়াপনার পরিণতি এমনই…(কপি পেস্ট)


তাহিয়া তাবাসসুম আদৃতা। বাড়ী কুমিল্লায়। কুমিল্লার ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে গত বছর উচ্চ মাধ্যমিক পাস করে সে। এরপর আরো বড় হবে এ প্রত্যাশায় ঢাকায় পাড়ি দেয়া। ঢাকার গোড়ানে খালা রুমীর বাসায় থাকত সে।

আদৃতা চেয়েছিল অনেক বড় হবে। তার অনেক টাকা হবে। হবে বাড়ী-গাড়ী। কিন্তু না কোনটাই তাকে ধরা দেয়নি। মডেলিং করতে গিয়ে সতীত্ব গেছে আগেই। বাকী ছিল প্রাণ। সেটিও গেল মিছে দুনিয়ার খপ্পরে পড়ে। যারা তাকে বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখিয়েছিল, সেইসব বন্ধুরাই তাকে গলাটিপে হত্যা করেছে!

আদৃতার মত আরো অনেক মেয়ে আছে যারা রঙ্গিন স্বপ্নে বিভোর হয়ে নিজের যা আছে সব বিসর্জন দিয়ে দেয়। অনেকে হয়ত সাময়িক কিছু পেলেও আত্মসম্মান নিয়ে বেচে আছে কয়জন? রঙ্গিন জীবনের কথা বলে একদল ভোগবাদী পুরুষেরা নারী দেহের প্রতিটি ইঞ্চিকে পণ্যে পরিণত করে গড়ে তুলছে সম্পদের পাহাড়। নারীরা অবহেলিত রয়েই যাচ্ছে।

তাই বলছি, ও আমার বোনেরা তোমরা তোমাদের জীবনকে আদৃতার মত শেষ করে দিও না। সুন্দর জীবন কে না চায়? যদি আত্মসম্মান আর সতীত্ব নিয়ে ইজ্জতের সাথে বেঁচে থাকা যায় তা যদি একটু কষ্টেরও হয় তা কি উত্তম নয়? প্রশ্ন রাখছি আপনাদের বিবেকের কাছে..

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+