বোবা শয়তান, ঈমানহীন , কাপুরুষের এক কাফেলা গাট্রি ছয় উছুলী তাবলীগ জামায়াত……


গাট্রি ছয় উছুলী তাবলিগ জামায়াত সারা বিশ্বে ইসলাম প্রচার এর বড়াই করে। অথচ কি মুসলিম আর কি কাফিরের দেশ সারা বিশ্বে মুসলিম হচ্ছে চরম নির্যাতিত। কিন্তু তা নিয়ে গাট্রিদের কোন মাথা ব্যাথা নাই। কোন প্রতিবাদ নাই !

আজ বাংলাদেশে –
১. ইসলাম নিয়ে ষড়যন্ত্র হচ্ছে কিন্তু গাট্রিদের কোন প্রতিবাদ নাই
২. হিন্দুরা কোরআন পুড়িয়েছে কিন্তু এদের কোন প্রতিবাদ নাই
৩. সিলেবাসে কুফরিতে পরিপুর্ন কিন্তু গাট্রিদের প্রতিবাদ নাই।
৪. ভারতীয় অশ্লিল পতিতাদের বাংলাদেশে আনা হচ্ছে কিন্তু গাট্রিদের প্রতিবাদ নাই।
৫. একের পর এক নাস্তিকেরা ইসলামের উপর আঘাত হানছে কিন্তু গাট্রিদের কোন প্রতিবাদ নাই।

আজ সিরিয়ায় লক্ষ লক্ষ মুসলমান এর জীবন বিপন্ন, ইরাক, লিবিয়া, ইয়েমেন , আফগানিস্থান, ভারত, মায়ানমার,চীনে মুসলমান চরমভাবে হচ্ছে নির্যাতিত কিন্তু গাট্রিদের কোন প্রতিবাদ নাই।

অর্থাৎ কোন কিছুতেই কোন প্রতিবাদ নাই !!
দুনিয়ার মুসলমান সব হারামে ঢুবে যাক ,
সব মুসলমান ধ্বংস হয়ে যাক…এতে গাট্রিদের কিছু যায় আসেনা ।
আল্লাহ পাক যেখানে কুরআনের অনেক আয়াত শরিফে কাফিরদের বিরুদ্ধে বলেছেন , সেখানে গাট্রি ছয় উছুলী তাবলীগ জামায়াত কাফিরদের বিরুদ্ধে বলা থেকে মুখে কুলুপ এটে থাকে।
কাজ শুধু গাট্রি নিয়ে দ্বিণের ফেরি করা !!!
প্রশ্ন হল মানুষের জীবন যেখানে বিপন্ন সেখানে তারা ইসলাম প্রচার করে কার কাছে ?

তাহলে এই গাট্রির দল কি ঈমানদার?
ছহীহ মুসলিম শরীফ ইরশাদ হয়েছে, মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল,হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ করেন, “তোমাদের মধ্যে যে ব্যক্তি কোনো অন্যায় বা হারাম কাজ সংঘটিত হতে দেখে সে যেনো তা হাত দ্বারা বাধা দেয়। যদি সে তা হাত দ্বারা বাধা দিতে না পারে তাহলে সে যেনো যবান দ্বারা বাধা দেয়। যদি যবানের দ্বারাও বাধা দিতে না পারে তাহলে যেনো অন্তরে তা ঘৃণা করে উক্ত অন্যায় বা হারাম কাজ থেকে দূরে সরে থাকে। আর এটা সবচেয়ে দুর্বল ঈমান উনার পরিচয়।” অন্য বর্ণনায় এসেছে, এরপর পবিত্র ঈমান উনার আর সরিষা পরিমাণ অংশও অবশিষ্ট থাকে না।” তাহলে গাট্রিদের ঈমান আছে কি?

এই গাট্রিরা কি বোবা শয়তান নয় ?
হাদীছ শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে, “হক্ব বলা থেকে যে চুপ থাকে, সে হলো বোবা শয়তান।” (মিশকাত শরীফ)

সমাজের একটা অংশ আজ এভাবেই নির্বোধ , কাপুরুষের বোঝা কাধে নিয়ে নিজেদের দ্বীনের ঠিকাদার মনে করছে।
ইহুদিবাদ ইসরাইলে গাট্রি ছয় উছুলী তাবলিগ জামায়াত কি করে দ্বীনের প্রচার করতে পারে তা মুসলমানকে ভাবতে হবে।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে