ব্রিটিশরা বুঝলো, ভারতীয় চাটুকারেরা বুঝলো, পাকী হানাদাররাও বুঝলো। কিন্তু বাঙালি মুসলমানরাই বুঝলো না!


বর্তমানে এদেশের মানুষেরা ইউরোপ-আমেরিকায় যেতে চায়। কারণ তারা ইউরোপ-আমেরিকাকে ধনী মনে করে, আর বাংলাদেশকে মনে করে গরিব। কিন্তু মাত্র কয়েকশ বছর আগেও ইউরোপীয়রা মরিয়া হয়ে উঠেছিলো ভারতে আসতে। কারণ মুসলিমশাসিত ভারতবর্ষই তখন ছিল বিশ্বের সবচেয়ে ধনী অঞ্চল।

আর এই ভারতবর্ষের সবচেয়ে ধনী অঞ্চলটি ছিল আমাদের এই বাংলাদেশ। এই বাংলার ধনসম্পদের লোভে বৌদ্ধ মগ নৌদস্যু, পর্তুগীজ হার্মাদ নৌদস্যু থেকে শুরু করে বর্গী অশ্বারোহী মারাঠা বিধর্মী দস্যুরাও এদেশের সাধারণ মানুষদের উপর হামলা চালিয়েছিল। কিন্তু কেবল ব্রিটিশরাই বিধর্মীদের সহযোগিতায় এতদাঞ্চলে তাদের উপনিবেশ স্থাপন করতে সক্ষম হয়েছিল। শুধুমাত্র বাংলার ধনসম্পদ পাচার করেই খ্রিস্টানরা সক্ষম হয়েছিল ইউরোপে শিল্প বিপ্লব ঘটাতে এবং বিশ্বে সুপারপাওয়ার হিসেবে নিজেদের অবস্থান নিশ্চিত করতে।

সুতরাং বাঙালি মুসলমানদের বোঝা উচিত যে, বর্তমানে তারা ইউরোপ-আমেরিকার যে কথিত সভ্যতা দেখে তাদের সামনে মাথানত করতে মনস্থির করছে, তা কিন্তু তাদেরই মুসলমান পূর্বপুরুষদের অর্থে গড়া। শুধু তাই নয়, বরং ব্রিটিশ আমলের কলকাতা শহরটিও এদেশের মুসলমানদের ধনসম্পদ কেড়ে নিয়ে তৈরি করা হয়েছে। যে কারণে বঙ্গভঙ্গ রদের সময়ে কলকাতার বিধর্মীরা পূর্ববঙ্গের ধনসম্পদ থেকে বঞ্চিত হবার আশঙ্কায় লিপ্ত হয়েছিল সন্ত্রাসবাদী আন্দোলনে।

এদেশের পাটের টাকাতেই পশ্চিম পাকিস্তান উন্নত হয়েছিল। যার ফলে পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠীও এদেশের ধনসম্পদের কদর বুঝতে পেরেছিল। ফলে ইয়াহিয়া খান ঘোষণা দিয়েছিল, “মাটি চাই, মানুষ চাই না।” এই ভূখ-কে ধরে রাখতেই তারা একাত্তরে লিপ্ত হয়েছিল ৯ মাসব্যাপী গণহত্যায়।

অর্থাৎ প্রত্যেক যালিম শাসকগোষ্ঠীই এদেশের কদর বুঝেছিল, এদেশের ধনসম্পদের কদর বুঝেছিল। কিন্তু আফসোস! এদেশের ভূমিপুত্র বাঙালি মুসলমানরাই বুঝলো না বাংলাদেশের কদর। তারাই এদেশকে মুহব্বত করতে পারলো না। কারণ তারা তাদের অভিভাবক মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনাকে চিনে নিতে পারেনি।

মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনিই আমাদেরকে প্রতিনিয়ত নছীহত মুবারক করে যাচ্ছেন যে, হাক্বীকতে এই বাংলাদেশই হলো ধনী আর ইউরোপ-আমেরিকা হলো গরিব। একদা ইউরোপ-আমেরিকা এদেশে লুটপাট চালাতে পেরেছিল বিধায় তারা ধনী হতে পেরেছিল। কিন্তু আজ তাদের উপনিবেশগুলো নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণে তারা আর আগের মতো এদেশে সেভাবে লুটপাট চালাতে পারছে না। ফলশ্রুতিতে ইউরোপ-আমেরিকা তাদের পূর্বেকার ন্যায় বর্তমানে ফের গরিব হয়ে গিয়েছে।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে