ভারতের প্রভাব বলয়ের বাইরে চলে যাচ্ছে নেপাল! বাংলাদেশেরও উচিৎ হবে নেপালের কাছ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা।


নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি এখন পাঁচ দিনের চীন সফরে রয়েছে। চীনের গণমাধ্যমগুলো তার এই সফরকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে প্রচার করছে। সরকারি পত্রিকা গ্লোবাল টাইমস লিখেছে যে নেপাল সেদেশে আর্থিক বিনিয়োগ আর অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পগুলোকে চূড়ান্ত রূপ দিতে চাইছে।
তবে পত্রিকাটি এও লিখেছে যে এই সফরের কারণে ভারতের আশাহত হওয়ার কোনও কারণ নেই, কারণ নেপালে তাদের প্রভাব কম হয়ে যাবে না।
কিন্তু গ্লোবাল টাইমসের প্রতিবেদনে উপদেশ দেয়া হয়েছে যে নেপাল-ভারত-চীনের মধ্যে ত্রিপাক্ষিক সম্পর্ক গড়ে তোলা উচিত।
ওলি গত ইয়াওমুছ ছুলাছা (মঙ্গলবার) চীনে পৌঁছেছে, আর ইয়াওমুল আহাদ (রবিবার) পর্যন্ত সেখানে থাকবে। এই সফরে তার সঙ্গে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে সাক্ষাতের কথা থাকলেও তাঁর মূলতঃ আলাপ আলোচনা হবে চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কাচিয়াংয়ের সঙ্গেই। সাংহাই ইনস্টিটিউট ফর ইন্টান্যাশানাল স্টাডিজ সেন্টারের পরিচালক চাও গেনচেংকে উদ্ধৃত করে গ্লোবাল টাইমস লিখেছে, “চীনের জন্য সবসময়েই নেপাল খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি দেশ। দুই দেশের মধ্যে বিস্তীর্ণ সীমান্ত রয়েছে। চীন আর স্বায়ত্বশাসিত তিব্বতের স্থিরতার জন্যও দুই দেশের সুসম্পর্ক প্রয়োজনীয়।”
চাও আরো বলেছে যে চীনের ‘ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড’ প্রকল্পে নেপাল একটি গুরুত্বপূর্ণ দেশ আর নেপালও চায় যে চীন তাদের দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সাহায্য করুক।
নেপালের সিনিয়র সাংবাদিক ও বিশ্লেষক যুবরাজ ঘিমিরে অবশ্য বলছে, “এই সফরের জন্য ভারতের চিন্তিত হওয়ার কোনও কারণ নেই। চীন আর নেপালের সম্পর্কে উন্নতি তো ঘটেইছে। ২০০৬ সাল পর্যন্ত দেশের নানা অভ্যন্তরীণ বিষয়ে ভারত নির্নায়ক ভূমিকা পালন করত। কিন্তু এখন তো আর সেই পরিস্থিতি নেই।”
সে বলেন, “নেপালে চীনের উপস্থিতি বেড়েছে। চীনও ক্রমশ নেপাল নিয়ে উৎসাহ দেখাচ্ছে। এগুলো জানা কথা। তাই আলোচনা করার বিষয় এটা হতে পারে যে, নেপাল আর ভারতের মধ্যে দূরত্ব কতটা বেড়েছে, সেই প্রসঙ্গটা।”

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে