মনোমুগ্ধকর অপরিমেয় সুবাস ছড়িয়ে শাহানশাহী বাগিচার প্রথমা পুষ্পের ডালে নব পুষ্পের প্রকাশ


কুদরতে ইলাহী! মু’জিযায়ে হাবীবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!!
মহান বারী তায়ালা উনার রহমত কুল-আলমে বিস্তারে, মাখলুকাতকে হিদায়েত দানের লক্ষ্যে অত্যন্ত শান-শওকতের সাথে, অত্যন্ত মনোলোভা, মনোমুগ্ধকর, মনকাড়া, অপরিমেয় সোন্দর্যম-িত করে একটি বাগিচা তৈরি করেন। মুবারক লহুর ফোয়ারা বাগিচা মূলে সদা বহমান। যেই ফোয়ারা বাগিচার উৎসমূল সেই ফোয়ারাই হচ্ছেন হযরত নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের নবী, হযরত রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক নুরুন নাজাত (লহু)।
এই বাগিচার যিনি মূল তিনি হচ্ছেন খলীফাতুল্লাহ, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, গাউছুল আ’যম, ইমামে আ’যম, মুর্শিদে আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া, রসূলে নোমা, নূরে মুকাররম, ক্বায়িম-মাক্বামে হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুজাদ্দিদে মাদারযাদ, হাবীবুল্লাহ লি ইত্তিবায়ি সুন্নাতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আওলাদুর রসূল, ইমাম ঢাকা রাজারবাগ শরীফ উনার সাইয়্যিদুনা হযরত মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম এবং ছাহিবাতুল মুকাররমা সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, আওলাদে রসূল, ওলীয়ে মাদারযাদ, ক্বায়িম-মাক্বামে উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম সাইয়্যদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম আলাইহাস সালাম। উনাদের যাবতীয় কাজ ও বিষয় পবিত্র সুন্নত উনার সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম পুঙ্খানুপুঙ্খ রঙে মাখা।
ক্রমান্বয়ে সেই বাগিচায় এক, দুই, তিনটি অতুলনীয়, আকর্ষণীয়, মনোলোভা, মনকাড়া, রৌওশন দীপ্ত নূরী ফুল প্রস্ফুটিত হয়। যাঁদের নূরে সারা জাহান আলোকিত হয়। বাগিচা হতে অনবরত নূরের রশ্মি সারা আলমে বিচ্ছুরিত হয়। মৌ মৌ ঘ্রাণে কুল-আলমকে মোহিত করে। অসংখ্য, অগণিত পথিক সেই নূরের ছটায় এবং মুগ্ধকর সুবাসে আকৃষ্ট হয়। তা লাভে নিজেদের ধন্য করে। পরপারের রাস্তা আলোকিত করে।
সেই শাহানশাহী বাগিচার প্রথমা ফুটন্ত ফুল। যা যাহরায়ী রঙে ও গুণে মিশে অতুলনীয়। সেই প্রথমা ডালে বিস্ময়করভাবে আরো একটি ফুল হাবীবী লহুর ফোয়ারায় সিক্ত, সৌন্দর্যম-িত হয়ে প্রকাশ ঘটে। সুবহানাল্লাহ!

“ইলাহীর গড়া পুষ্প বাগিচার বিকাশ
ছড়িয়ে ওই সুবাস প্রথমা ডালে প্রকাশ
শাফিউল উমাম হন, রাসূলী নির্যাস”

সেই নূরী ফুল মুবারক হচ্ছেন, কুতুবুল আলম, বাবুল ইলম, শাফিউল উমাম, মুহইউস সুন্নাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা হযরত শাহদামাদ আউওয়াল ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম। সেই নব ফুল মামদূহ আক্বা ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক সৌন্দর্যে সৌন্দর্যম-িত। সেই ফুল মামদূহ আক্বা ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক নিসবতে সর্বক্ষণ অটুট রহেন। সেই ফুলের প্রত্যয়ী ব্যক্তিত্ব সকলকে আকর্ষণ করে। এক নজর দেখলে আরেক নজর দেখার জন্য আগ্রহ জাগে। মামদূহ আক্বা ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক ইলমের দরজা হয়েই উনার আত্মপ্রকাশ ঘটে।

“মামদূহয়ী হুসনেদাদ শাহদামাদজীর বদন
নিছবতে বাঁধা রহেন অটুট সর্বক্ষণ
প্রত্যয়ী আপনার ব্যক্তিত্ব, করে আকর্ষণ
হায়দারী লহু পাক জাতে হয় বর্ষণ
‘বাবুল ইলম’ হয়েই হলেন প্রকাশ”

“তীক্ষè সমঝ সর্বদা সূক্ষ্ম রয় মনন
পাক আহালী রঙেই রাঙানো গড়ন
দীদারী মোহনায় ডুবান দেহ-মন
ক্বিবলা কা’বায় মিশ্রিত থাকেন অনুক্ষণ
ছড়িয়ে সুবাস হন আহালে প্রকাশ”

মামদূহ আক্বা ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক সন্তুষ্টিকে যে কেউ লক্ষ্য রেখে অগ্রসর হলে শাফিউল উমাম, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা হযরত শাহদামাদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম অত্যন্ত আদরের সহিত উনার দৃষ্টির নূর বিছিয়ে দেন।
উনার মুবারক হস্তে সর্বদা শোভা পায় জুলফিকার। যার ঝলসানো তেজে তিনি বাতিলের সমস্ত কুটকৌশল সমূলে বিনাশ করেন। যমীন থেকে উৎখাত করেন। উনার মুবারক শানে তাকবীর ধ্বনিতে আজ আকাশ-বাতাস প্রকম্পিত।

“লক্ষ্য যবে স্থির হয় মুর্শিদীপুর
শাহদামাদ আদরে বিছিয়ে দেন নূর
নাঙ্গা জুলফিকারের ঝলসানো তেজে
দীপ্ত পদে হরদম ভাঙ্গেন বাতিল চূড়
তাকবীরে প্রকম্পিত আকাশ-বাতাস”

শাহানশাহী সোপানে উনার মুবারক অধিষ্ঠান। উনার মুবারক বদনের মিষ্টি হাসিতে যেন মুক্তা ছড়ায়। দয়ার দরিয়ার সর্বদা বহে জোয়ার। আহালী মায়ার নিসবতে সকলকে শামিল করেন। হিংসা, বিদ্বেষ, রিয়া সমূলে করেন বিনাশ।

“উপনীত শাহানশাহী সোপানে
অমায়িকতায় আপনার জয় জাহানে
মনকাড়া মিষ্টি হাসিতে মুক্তা ছড়ায়
মামদূহতে অধম মিশি উহা কুড়ায়
ছড়িয়ে সুবাস হন আহালে প্রকাশ”

“দরিয়ায় অনুক্ষণ রহে জোয়ার
মুর্শিদী বাগের রাযী ছড়ান দুর্বার
অঝোর ধারায় বহান নাজের ফোয়ার
নিসবতী ছায়া মাখেন আহালী মায়ার
অন্তঃরিপু সমূলে করেন বিনাশ”

আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা হযরত শাফিউল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি আহালীবাগের কোমল সমীরণের মাধ্যমে সকলকে সিক্ত করছেন। দু’আখির রওশন ঢেলে মামদূহ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক ক্বদমে অর্পণ করছেন। কামিয়াবী উনার মুবারক ক্বদম যুগলে। সেই কামিয়াবীর হিস্যায় তিনি আমাদের সকলকে মকবুল করছেন। সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক সন্তুষ্টির চূড়ান্ত সীমায় পৌঁছাচ্ছেন। সর্বোপরি আহালী নাজে মোদের নাজি করছেন। সুবহানাল্লাহ!

“দেখি ওই সাজের কোমল সমীরণ
বাগিচা হতে বহিছে বেগবান
একটু ইশারা চায় শাহদামাদজীর ছোঁয়ায়
এখনি সোহাগে জড়াবে মম কায়ায়
দু’পদে অনন্তই মোর হবেই আবাস”

“আঁখি যুগলে অপরিমেয় রওশন
এক দৃষ্টিতে করেন মামদূহতে অর্পণ
কামিয়াবী আপনার ক্বদমে বিচরণ
চুমোয় চুমোয় উহা করবো আহরণ
মিলন ক্ষণের কভু না হয় নিঃশেষ”

তাই আমাদের সকলের আরজু- “হে মামদূহ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম! আমাদের সকলকে সেই বাগিচার হাক্বীক্বী মালী হওয়ার তাওফীক দান করুন। আমীন! ছুম্মা আমীন!!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে