মসজিদের জন্য দানকারী ধনীর জন্যও আফসুস!


কতক ধনী লোক আছে, তারা নিজেদের হালাল উপায়ে অর্জিত অর্থ নিঃস্ব, অভাবগ্রস্তদের সাহায্যে ব্যয় না করে মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে মসজিদের সৌষ্ঠব এবং জাঁকজমক বৃদ্ধি কাজে খরচ করে। আর মনে মনে ধারণা করে- খুব বড় নেকীর কাজ করে ফেললাম। কিন্তু এই নির্বোধেরা অবগত নয় যে, একাজে নেকীর বদলে বরং দু’রকমের অন্যায় করা হলো। প্রথমতঃ মনোরম নকশা ও কারুকার্য খচিত মসজিদে নামায পড়লে নামাযীর মন ঐসব নকশা ও কারুকার্যের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে নামাযের একাগ্রতা নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
দ্বিতীয়তঃ মসজিদে ঐ কারুকার্য, নকশা দেখে মুছল্লীদের বাসস্থানকেও ঐরূপ সৌষ্ঠবপূর্ণ ও কারুকার্যময় করে গড়ে তোলার বাসনা মনে প্রবল হয়ে উঠে এবং সেই বাসনা নিয়েই মসজিদ থেকে বের হয়, যা কোনো কল্যাণ হতে পারে না। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেছেন, তোমরা যখন মসজিদে বিচিত্র কারুকার্য ও সৌষ্ঠব করতে শুরু করবে এবং কুরআন শরীফ উনার উপর স্বর্ণখচিত জিলদ তৈরি করতে শিখবে তোমাদের তৎকালীন অবস্থা অত্যন্ত পরিতাপজনক হবে। নাউযুবিল্লাহ!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে