মসজিদে ঠিঠি পাঠিয়ে নয়, বরং সংবিধানে মহান আল্লাহ পাক উনার প্রতি ‘পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস’ পুনঃস্থাপন করে জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনুন


আওয়ামী লীগ নাকি হিন্দুর দল, নাস্তিকের দল। এটা কিন্তু এক সময় সবার মুখে মুখে প্রচলিত ছিল। কিন্তু নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিতে শেখ হাসিনা যখন বললেন, “আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গেলে পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ বিরোধী কোনো আইন পাশ হবে না” এ বক্তব্য মুনে মনে আশায় আলোর সঞ্চয় হলো, ক্ষমতায় আসল আওয়ামী লীগ। কিন্তু ক্ষমতায় এসে সেই প্রতিশ্রুতি ভুলে গিয়ে সংবিধানে মহান আল্লাহ পাক উনার প্রতি ‘পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস’ তুলে দিলো আওয়ামী লীগ সরকার। যার কারণে জনগণ সেই পুরোনো প্রবচনের বাস্তব প্রমাণ দেখতে পেল।
কিছুদিন পূর্বে কুলাঙ্গার নাস্তিক ব্লগারদের গ্রেফতারের পর সরকার মসজিদে মসজিদে চিঠি পাঠিয়ে জনগণের মনে আবার ধর্মীয় সহানুভূতি তথা আস্থা ফিরিয়ে আনতে চেষ্টা করছে।
এখানে সরকারের মনে রাখতে হবে, সরকার যদি পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার পক্ষে কোনো কার্যক্রম গ্রহণ করে, তবে তা মিডিয়ার মাধ্যমে সারা বাংলাদেশের মুসলমানগণ এমনিতেই জানতে পারবে, আলাদা করে চিঠি পাঠানোর কোনো প্রয়োজন নাই।
মূলত: সরকারের উচিত ছিল সংবিধানের পুনরায় মহান আল্লাহ পাক উনার প্রতি ‘পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস’ পুনঃস্থাপন করা এবং “আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গেলে পবিত্র কুরআন ও সুন্নাহ শরীফ বিরোধী কোনো আইন পাস হবে না” এই প্রতিশ্রুতি তথা ওয়াদার বাস্তবায়ন করা। তাহলেই সহজে জনগণনের মনে আওয়ামী লীগের প্রতি আস্থা ফিরে আসবে।
প্রকৃতপক্ষে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার প্রতি আঘাত হেনে নয়, বরং খিদমতের মাধ্যমেই ক্ষমতায় টিকে থাকা সম্ভব।

Views All Time
1
Views Today
4
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে