সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দু:খিত। ব্লগের উন্নয়নের কাজ চলছে। অতিশীঘ্রই আমরা নতুনভাবে ব্লগকে উপস্থাপন করবো। ইনশাআল্লাহ।

মসজিদ আল-আকসা: ইহুদী চক্রান্ত থেকে সাবধান!


মসজিদ আল-আকসা হলো মুসলমানদের প্রথম ক্বিবলা। ইসলামে সালাত ফরজ হওয়ার পর প্রথম ১৭ মাস আল-আকসার দিকেই মুখ করে সালাত আদায় করা হয়।

‘আকসা’ শব্দের অর্থ হচ্ছে দূরবর্তী’। মসজিদ আল-আকসার শাব্দিক অর্থ হচ্ছে দূরবর্তী মসজিদ। মক্কা শরীফ-এর মসজিদ আল-হারাম থেকে পবিত্র মিরাজ শরীফ-এর সূচনা হয়। সে উপলক্ষে কুরআন শরীফ-এর সূরা ইসরা’য় মসজিদ আল-আকসা’ শব্দটি উল্লেখিত। আগে এর নাম ছিল বাইতুল মুকাদ্দাস। অত:পর এই মসজিদের নামকরণ হয় মসজিদ আল-আকসা’।

আল-আকসা’র অপর গুরুত্ব হলো এটি মুসলিমদের নিকট তৃতীয় গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় স্থান। আল-আকসার অনেক ফযিলত হাদীস শরীফ-এ বর্ণিত আছে।

হযরত আনাস ইবনে মালিক রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হতে বর্ণিত, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিন বলেন, কোন ব্যক্তি যদি ঘরে নামায পড়ে তবে তার এক নামাযে- এক হাজার সওয়াব পাবে। আর যদি পাঞ্জেগানা মসজিদে নামায পড়ে তবে এক নামাযে- পঁচিশ নামাযের সওয়াব পাবে। আর যদি জুমুয়ার মসজিদে এক নামায পড়ে তবে পাঁচশ’ নামাযের সওয়াব পাবে আর যদি মসজিদুল আক্বসায় পড়ে তবে পঞ্চাশ হাজার নামাযের সওয়াব পাবে। আর মসজিদুন নববী শরীফ-এ এক নামায পড়ে তবেও পঞ্চাশ হাজার নামাযের সওয়াব পাবে। আর যদি ক্বাবা শরীফ-এ এক নামায পড়ে তবে এক লাখ নামাযের সওয়াব পাবে। (ইবনে মাজাহ, মিশকাত শরীফ)

বর্তমানে আল-আকসা নিয়ে মুসলিমদের মধ্যে একটি অসচেতনতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আর তা হলো, যে ছবিটি আল-আকসা মসজিদের ছবি হিসেবে প্রকাশিত হয় তা প্রকৃতপক্ষে আল-আকসা মসজিদের ছবি নয় বরং এটি কুব্বাতুল সাখরা।

কুব্বাতুল সাখরা হলো মসজিদ আল-আকসা কমপ্লেক্সের মধ্যে অবস্থিত একটি গম্বুজের নাম। কুব্বাত-এর শাব্দিক অর্থ হলো গম্বুজ আর সাখরা হলো পাথরখন্ড। এর ইংরেজি নাম ‘Dome of the Rock’ অর্থাৎ পাথরখন্ডের গম্বুজ।

‘ডোম অব দি রক’ এবং মসজিদ আল-আকসা’ এক স্থাপনা নয় এবং তাদের মধ্যে অবস্থাগত পার্থক্য যেমন রয়েছে তেমনি রয়েছে ধর্মীয় গুরুত্বের দিক দিয়েও বিস্তর পার্থক্য।

বাংলাদেশের ইসলামী ফাউন্ডেশন তাদের ইসলামী বিশ্বকোষে কুব্বাতুল সাখরা’ বা ডোম অব দি রক’-এর ছবি ছাপিয়ে তার নিচে ক্যাপশন দিয়েছে মসজিদ আল-আকসা’। এছাড়া ইরানের শিয়ারা প্রতি বছর রাষ্ট্রীয়ভাবে মসজিদ আল-আকসার মুক্তির লক্ষ্যে যে আল- কুদস’ দিবস পালন করে থাকে এবং তাতে যে পেপার ওয়ার্ক উপস্থাপন করে, সেগুলোতে ডোম অব দি রক’-এর ছবিই ছাপা হয়। এছাড়া মসজিদ আল-আকসা সংক্রান্ত লেখালেখি, পত্র-পত্রিকা, ক্যালেন্ডার, লিফলেট, মুদ্রা ইত্যাদিতে ডোম অব দি রক’-এর ছবিই অধিক গুরুত্বের সাথে উপস্থাপিত হতে প্রায়শই দেখা যায়। তাতে সাধারণ বা অসাধারণ সকল মুসলিমের মধ্যে এরূপ ধারণা বদ্ধমূল হচ্ছে যে, ডোম অব দি রক’-এর ছবিটিই মসজিদ আল-আকসা’র ছবি। এভাবে আজ মুসলিম সমাজ মসজিদ আল-আকসার ব্যাপারে ইহুদীদের উদ্দেশ্যমূলক প্রচারণায় বিভ্রান্ত হয়ে পড়ছে। আর এটা আমাদের অসচেতন মানসিকতার প্রকট একটি উদাহরণ।

 

মসজিদ আল-আকসা

al aqsa

 

মসজিদ আস সাখরা (Dome of the Rock)

as sakara

 

একসাথে দেখুন

al aqsa

 

মসজিদ আল-আকসা-এর আরো কিছু ছবি

al aqsa

al aqsa

al aqsa

Views All Time
3
Views Today
3
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

২৮টি মন্তব্য

  1. উপকারি পোষ্ট। Rose প্রিয়তে রাখলাম। ধন্যবাদ।

  2. পোষ্টটি ভাল লাগলো, শুকরিয়া, এমন একটি পোষ্টের জন্য Rose

  3. সরলমত সরলমত says:

    প্রিয়তে রাখলাম। পরে পড়মুনে।
    তো পোষ্টের জন্য ধন্যবাদের সহিত শুকরিয়া।

  4. ইলমের বাগানের ফুল ইলমের বাগানের ফুল says:

    বাহ্…….সুন্দর তো। শুকরিয়া।

  5. খুবই একটা তথয় পুর্ণ পোস্ট হয়েছে আপনাকে জানাই আন্তরিক মুবারকবাদ. Dead Rose Rose

  6. সত্যকথন সত্যকথন says:

    অসাধারণ, একটি মারাত্মক ভূলের অপনোদন।

  7. মুস্তাফিজ ভাই এ রকম আরো অনেক বিষয়ে মুসলমান গন ইহুদী নাসারা দের দ্বারা বিভ্রান্তির শিকার। এ ধরনের পোষ্ট আরো বেশী বেশী দরকার। আর এই পোষ্টের জন্য শুকরিয়া!!!

  8. আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে ইহুদী চক্রান্ত থেকে সাবধান থাকার তাওফীক দান করুন (আমীন)

  9. লজ্জার বিষয় ! ইহুদীরা মুসলমানদের এ্কটি ঐতিহাসিক নিদর্শন পাল্টে দিলো আর মুসলমানরা সেটাকেই মেনে নিল ! বলার অপেক্ষা রাখে না যে , মুসলমানরা আজ কতটুকু অজ্ঞতায় গিয়ে পৌছেছে …তারা হুযুর পাক সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সুন্নত বাদ দিয়ে অনুসরণ করছে কাফেরদের রীতিনীতি , ইসলামের আদেশ নিষেধ বাদ দিয়ে তারা মানছে বেদীনদের আদেশ নিষেধ… এভাবে বেশির্ভাগ মুসলমানরা ঢুকে পরেছে কাফেরদের ধর্মে এবং তারা ওদের প্রতি এতটাই অন্ধবশ্বাসী হয়ে উঠেছে যে তারা যদি প্রকাশ্যে দীন ইসলামকে পাল্টিয়েও দেয় তাহলেও তাদের সেটা মানতে দ্বীধাবোধ করবে না। যদিও এখন তারা অপ্রকাশ্যে এসব করে যাচ্ছে।

  10. মুস্তা ভাই আস্তা একটা পোস্ট দিছেন…দারুণ… আসলেই জরুরী বিষয়…

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে