মহান আল্লাহ পাক উনার যারা ওলী উনাদের বিরোধিতাকারীরা মুসলমানের অন্তর্ভুক্ত নয়!


‘ওলীআল্লাহ’ অর্থ খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার বন্ধু, অভিভাবক, প্রতিনিধি। যিনি প্রকৃত ওলীআল্লাহ তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার আদেশ-নিষেধ অনুযায়ী চলে থাকেন। সম্মানিত শরীয়ত ও পবিত্র সুন্নত মুবারক উনাদের পরিপূর্ণ পাবন্দ। তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টিপ্রাপ্ত ও প্রিয় বান্দা। যে কারণে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “সাবধান! নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক উনার যারা ওলী উনাদের কোনো ভয় নেই এবং কোনো চিন্তা বা পেরেশানীও নেই।”
পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, মহান আল্লাহ পাক উনার যারা ওলী উনাদেরকে তোমরা মুহব্বত করো, নিশ্চয়ই উনারা মহান আল্লাহ পাক উনার তরফ থেকে মকবুল এবং উনাদের তোমরা সমালোচনা বা বিরোধিতা করো না। কেননা উনারা মহান আল্লাহ পাক উনার তরফ থেকে সাহায্যপ্রাপ্ত। (কানযুল উম্মাল)
উক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার দ্বারা মহান আল্লাহ পাক উনার যারা ওলী উনাদেরকে মুহব্বত ও তা’যীম-তাকরীম বা সম্মান করার জন্য বান্দা-বান্দীদেরকে আদেশ করেছেন পাশাপাশি উনাদের সমালোচনা বা উনাদের প্রতি বিদ্বেষ ও বিরোধিতা করতে নিষেধ করেছেন।
মোট কথা, হযরত আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক উনার যারা প্রকৃত ওলী উনাদের প্রত্যেককে মুহব্বত ও সম্মান করতে হবে। উনাদেরকে মুহব্বত ও সম্মান করার অর্থই হচ্ছে মহান আল্লাহ পাক উনাকে মুহব্বত ও সম্মান করা, এর বিপরীতে উনাদের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করা, উনাদের বিরোধিতা ও সমালোচনা করার অর্থ হচ্ছে মহান আল্লাহ পাক উনারই বিরোধিতা করা। যার কারণে ছহীহ বুখারী শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত হয়েছে, মহান আল্লাহ পাক তিনি হাদীছে কুদসী শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “যে ব্যক্তি আমার কোনো ওলী উনার সাথে শত্রুতা পোষণ করবে আমি তার বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করি।
উল্লেখ্য, মহান আল্লাহ পাক তিনি কোনো ঈমানদারের প্রতি কখনোই জিহাদ ঘোষনা করেন না। কেননা মহান আল্লাহ পাক তিনি ঈমানদারগণের ওলী বা অভিভাবক। কাজেই মহান আল্লাহ পাক তিনি যাদের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করেন, তারা আদৌ ঈমানদার নয় বরং তারা কাট্টা কাফির এবং চির জাহান্নামী।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে