মহাপবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফই হলেন ‘নিয়ামতে উজমা’


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমাদেরকে যে নিয়ামত মুবারক দেয়া হয়েছে, তোমরা সে নিয়ামত মুবারক উনাকে স্মরণ কর।” (পবিত্র সূরা আলে ইমরান শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১০৩)
এ পবিত্র আয়াত শরীফ দ্বারা মহান আল্লাহ পাক উনার প্রদত্ত নিয়ামত মুবারক স্মরণ করা, নিয়ামত মুবারক উনার আলোচনা করা, নিয়ামত প্রাপ্তির দিন ঈদ বা খুশি প্রকাশ করা ফরয করে দিয়েছেন। আর খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার প্রদত্ত সবচেয়ে বড়, সর্বশ্রেষ্ঠ, সর্বোত্তম নিয়ামত তথা নিয়ামতে উজমা হলেন যিনি উনার প্রিয়তম রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি। সুবহানাল্লাহ!
এবং সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে লাভ করে খুশি প্রকাশ করা হচ্ছে সবচেয়ে বড় ফরয। কেননা ফরয, ওয়াজিব, সুন্নতসহ সমস্ত বিষয় মুবারকই আমরা তথা জিন-ইনসান, কুল-কায়িনাত স্বয়ং আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার কাছ থেকে জেনেছি। আর তিনি যদি তাশরীফ মুবারক না আনতেন তবে এই ফরয-ওয়াজিবসহ কোনো কিছু এমনকি কুল-কায়িনাতেরও অস্তিত্ব থাকতো না। সেজন্য মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি উম্মাহকে জানিয়ে দিন, খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি স্বীয় ফযল ও রহমত হিসেবে উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে পাঠিয়েছেন সেজন্য তারা যেন খুশি প্রকাশ করে। এই খুশি প্রকাশ করা হচ্ছে সমস্ত আমল থেকে উত্তম এবং শ্রেষ্ঠ।” (পবিত্র সূরা ইউনূস শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৫৮) সুবহানাল্লাহ!
অতএব, আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে পেয়ে তথা সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উপলক্ষে খুশি প্রকাশ করা বা ঈদ পালন করা স্বয়ং মহান আল্লাহ পাক উনারই নির্দেশ মুবারক।
ইরশাদ মুবারক হয়েছে- “নিয়ামত উনার শুকরিয়া আদায় করলে মহান আল্লাহ পাক নিয়ামত বৃদ্ধি করে দেন আর অস্বীকার করলে বা শুকরিয়া আদায় না করলে নিয়ামত উনাকে ছিনিয়ে নেয়া হয়।”
কাজেই পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উপলক্ষে অবশ্যই অবশ্যই দায়িমীভাবে অনন্তকালের জন্য খুশি প্রকাশ করতে হবে, যেভাবে অতীতে হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা করেছেন এবং বর্তমানে যামানার সুমহান মুজাদ্দিদ, সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম, সাইয়্যিদাতুনা উম্মুল উমাম আলাইহাস সালাম এবং সম্মানিত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা করেছেন, করছেন এবং অনন্তকালব্যাপী করবেন। সুবহানাল্লাহ!
শুধু তাই নয়, উনারা কুল-কায়িনাতের জন্য অনন্তকাল ধরে পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালনের ব্যবস্থাও করে দিয়েছেন। সুবহানাল্লাহ!
মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি, সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম তিনি এবং সম্মানিত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা আমাদের সকলকে সর্বশ্রেষ্ঠ নিয়ামত মুবারক উনার শুকরিয়া আদায় করার তাওফীক দান করুন। আমীন!

Views All Time
2
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে