মায়ানমার : বাংলাদেশের নিরবতা যাকে বেপরোয়া করেছে


মায়ানমার সরকার বলেছে, “ত্রাণের টাকার লোভে বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের ফেরত দিচ্ছে না।” তাদের দাবি- তারা নাকি রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে চায়, কিন্তু আশঙ্কা করছে- ত্রাণের টাকার লোভে বাংলাদেশ তাদের ফেরত দিতে চাইবে না। (http://bit.ly/2h4rPdb)
১) বেশ অনেক বছর আগে থেকেই মায়ানমার রোহিঙ্গাদের মিথ্যা বাংলাদেশী নাগরিক বলে প্রচার করতো, কিন্তু বাংলাদেশ তার প্রতিবাদ করতো না।
২) রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশী বলে বার বার গণহত্যা করতো, কিন্তু বাংলাদেশ তার কোন প্রতিবাদ করতো না।
৩) রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে জোর করে পাঠিয়ে দেয়া হলো, বাংলাদেশ কোন প্রতিবাদ করলো না,
৪) রোহিঙ্গাদের প্রসঙ্গ আসতেই তারা বললো- ‘তারা রোহিঙ্গাদের ফেরত নেবে’, ‘৩০০ জন করে ফেরত নেবে’, ‘কাগজ দেখে ফেরত নেবে’। ফেরতই যখন নেবে তখন ঘরবাড়ি আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিলে কেন ? তবে এত কিছুর পরে বাংলাদেশ কোন প্রতিবাদ করেনি।
৫) একাধিকবার আকাশসীমা লঙ্ঘন, সীমান্তে সেনা সমাবেশ, মাইন পুতে রাখাসহ তাবৎ অন্যায় কাজ করলো, কিন্তু তার বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিলো না বাংলাদেশ।
এত সব অপকর্মের পর বাংলাদেশ তার প্রতিবাদ তো করেনি, উপরন্তু খাদ্যমন্ত্রীকে পাঠিয়েছে অপ্রয়োনীয় আতপ চাল কিনতে, বাস্তবে যার কোন প্রয়োজন ছিলো না। ন্যাক্কারজনকভাবে দেখানো হয়েছে বাংলাদেশ সরকারের অতি ছ্যাবলামি নীতি। বাংলাদেশ সরকারের অতি ছ্যাবলামী নীতির কারণে এখন সে মাথায় উঠে নাচছে।
মায়ানমারকে আপনি যতই ভালোমানুষী দেখান, সে কিন্তু ভালো হবে না। আর ভালো হওয়ার লোকও সে নয়। সে হলো থার্ডক্লাস কোয়ালিটির, ভদ্রতা-নৈতিকতার ধার সে ধারে না। বেশি ভদ্রতাকে দুর্বলতা মনে করে। বাংলায় একটা প্রবাদ আছে, ‘কুকুরের জন্য মুগুর’। কুকুরকে বেশি ভদ্রতা দেখালে কামড় খেতে হয়। কিন্তু একটা মুগুর দিলেই সে কেউ কেউ করে পালায়। বাংলাদেশের উচিত মুসলিমদেশগুলোকে ডেকে আটঘাট বেধে ঐ কুকুরের জন্য মুগুর রেডি করা।

collected……….

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে