মিরসরাইয়ে টিউবওয়েলে প্রাকৃতিক গ্যাস


পাঁচ ফুট উঁচুতে আগুনের শিখা

মিরসরাই উপজেলার ১২নং খৈয়াছরা ইউনিয়নের পশ্চিম পোলমোগরা গ্রামের জহুরুল আমিন সারেংবাড়ীর ভুট্টো ড্রাইভার ঘরের পিছনে টিউবওয়েল স্থাপন করছিল গত শনিবার সকালে। বিকেল নাগাদ ৫৩ ফুট গভীরে পৌঁছে পাইপ। এক পর্যায়ে পাইপ দিয়ে নির্গত পানির সাথে এক ধরনের উত্কট গন্ধ ছড়ালে টিউবওয়েল মিস্ত্রী শাহজাহানের সন্দেহ হয়। গ্যাস হতে পারে ধারণা করে দিয়াশলাই জ্বালাতেই দপ করে আগুন জ্বলে ওঠে। এ সময় মিস্ত্রী শাহজাহানসহ অনেকের মাথার চুল পুড়ে যায়। ভয়ে সবাই আগুন নেভাতে মরিয়া হয়। টিউবওয়েলে চাপ দিয়ে দিয়াশলাই জ্বালালেই গ্যাসের আগুন দুই থেকে পাঁচ ফুট উপরে উঠছে।

মিরসরাই ও সীতাকুণ্ড উপজেলায় পূর্বে গ্যাস নিয়ে অনুসন্ধান হয়নি। ২০০৪ সালে উপজেলার মস্তাননগর শহীদ মেম্বার বাড়িতে নলকূপের পানিতে একইভাবে অনেকদিন গ্যাস নির্গত হয়েছিল। হাইতকান্দি বাপনাপুকুর এলাকায় আবুল হোসেন মিয়ার বাড়িতে ও সাহেরখালী গ্রামীণ ব্যাংকের পূর্ব পাশে স্থানীয়রা মাটির গর্তে আগুন ধরিয়ে দিত। বাপেক্সের বিজ্ঞানী তদন্ত রিপোর্ট প্রদান করার পর দীর্ঘ ৮ বছরে কোন অনুসন্ধান করা হয়নি।

সীতাকুণ্ডের কুমিরায় বনবিভাগের গহীন পাহাড়ে উষ্ণ প্রস্রবন বা গরম পানির ঝর্ণা এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে বুঁদবুঁদ আকারে প্রাকৃতিক গ্যাস নির্গত হয়ে আসছে। মিরসরাই-সীতাকুণ্ড মধ্যবর্তী বারৈয়াঢালা ইউনিয়নের ছোটদারোগার হাট লবণাক্ষ মন্দির এলাকায় পাহাড়ের পাদদেশে পাথরের ফাটলে দিয়াশলাই জ্বালালেই আগুন জ্বলছে। গ্যাসের অনুসন্ধান বিষয়ে বাপেক্সের জিওলজিক্যাল সার্ভে বিভাগের আলম-গীর হোসেন জানান, এই অঞ্চলে বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন সময় যেসব গ্যাসের পকেট পাওয়া গেছে তার ভিত্তিতে পর্যাপ্ত অনুসন্ধান হলে গ্যাসের খনি রয়েছে কিনা বলা যাবে। বর্তমান লক্ষণগুলোতে সম্ভাবনা উজ্জ্বল বলা চলে।

 

 

সূত্র: দৈনিক ইত্তেফাক ২৭.০২.২০১২

Views All Time
2
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+