মুনাফিক প্রসঙ্গে…


“তোমরা কি কিতাবের কিছু অংশ মানবে, আর কিছু অংশ অস্বীকার করবে? তোমাদের মধ্যে যারা এরূপ করবে (কিছু মানবে, কিছু অস্বীকার করবে), দুনিয়ায় তাদের বদলা বা শাস্তি হচ্ছে- লাঞ্ছনা-গঞ্জনা এবং ক্বিয়ামতের দিন তাদেরকে কঠিন শাস্তির দিকে ধাবিত করা হবে।” (সূরা বাক্বারা : আয়াত শরীফ ৮০)
 
প্রকৃতপক্ষে কোন মুসলমান সম্মানিত শরীয়তের কোন কিছুকে অস্বীকার করতে পারে না। কোন নির্দেশ যদি সে পালন করতে নাও পারে, তাতে সে নিজের অপারগতা প্রকাশ করবে, ইস্তেগফার তওবা করবে; কিন্তু সেই নির্দেশ অস্বীকার করতে পারবে না। তাহলে কোন শ্রেণীর লোকেরা কিতাবের কিছু মানে ও কিছু অস্বীকার করে? তাদের পরিচয় দিয়ে কালামুল্লাহ শরীফে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, তারা হল যারা পরকালের বিনিময়ে দুনিয়াকে খরিদ করেছে। অর্থাৎ তারা মুনাফিক। তাদের সতর্ক করে মহান আল্লাহ পাক তিনি আরো ইরশাদ মুবারক করেছেন যে, তিনি সবকিছু জানেন। অর্থাৎ কাদের অন্তরে মুনাফিকি রয়েছে তা তিনি জানেন।
 
এথেকে আমরা বলতে পারি যারা মুসলমান পরিচয় দিয়েও ওয়াজিব কুরবানীর বিরোধতা করে, সুন্নতী বাল্যবিবাহের বিরোধিতা করে, সম্মানিত শরীয়তের নিয়মনীতির বিরোধিতা করে তারা প্রত্যেকে কাট্টা মুনাফিক। খালিছ তওবা না করে মারা গেলে তাদের অবস্থানস্থল হবে জাহান্নামের সর্বনিম্ন স্তরে। নাউযুবিল্লাহ!
Views All Time
4
Views Today
7
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

  1. অালীফ লাম মীমঅালীফ লাম মীম says:

    সূরা বাক্বারা : আয়াত শরীফ ৮৫

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে