মুসলমানগণকে যুলুম নির্যাতন করার ফলস্বরূপ যুলুমবাজ কাফিরদের উপর খোদায়ী গযব অব্যাহত -১


মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার দোয়া ও রোবের প্রতিফলন
মুসলমানগণকে যুলুম নির্যাতন করার ফলস্বরূপ যুলুমবাজ কাফিরদের উপর বন্যা, তুষারপাত, ঘূর্ণিঝড়, দাবানল, ভূমিকম্প প্রভৃতি প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ বিভিন্ন প্রকার বিশৃঙ্খলা অস্বাভাবিক মৃত্যু এবং অর্থনৈতিক মন্দারূপে খোদায়ী গযব অব্যাহত
পৃথিবীর সমস্ত ইহুদী-নাছারা-মজুসী-মুশরিক তথা তাবৎ কাফির স¤প্রদায় পৃথিবীর আনাচে-কানাচে, অলিতে-গলিতে মুসলমানদের উপর জুলুম নির্যাতন করছে, তাঁদেরকে শহীদ করছে, মুসলমানদের সম্পদ লুণ্ঠন করছে, মুসলিম মহিলাদের সম্ভ্রমহরণ করছে, সন্ত্রাসী অপবাদ দিয়ে হেয় প্রতিপন্ন করছে। জুলুম-নির্যাতনের পাশাপাশি ফরয-ওয়াজিব-সুন্নতে মুয়াক্কাদা পালনে তথা শরীয়ত পালনে বাধা প্রদান করছে।
এতদ্প্রেক্ষিতে যামানার ইমাম ও মুজাদ্দিদ, সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম, কুতুবুল আলম, কাইয়্যুমুয যামান মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি পৃথিবীর সমস্ত নির্যাতিত মুসলমানদের পক্ষ থেকে যিনি মহান আল্লাহ পাক উনার শাহী দরবারে কাবা শরীফকে যেভাবে জালিম কাফির আবরাহার হাত থেকে রক্ষা করেছেন সেভাবে মুসলমানদেরকে রক্ষা করার এবং এই কাফির সম্প্রদায়কে আবরাহার মতো ধ্বংস করে দেয়ার ফরিয়াদ জানান।
উনার সেই মুবারক দোয়া ও ফরিয়াদের ফলে মহান আল্লাহ পাক কাফিরদের উপর বিভিন্ন আযাব-গযব নাযিল করে তাদেরকে নিস্তানাবুদ করে দিচ্ছেন।
তার প্রমাণ হচ্ছে সাম্প্রতিক সময়ে ইউরোপ-আমেরিকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন কাফিরদের দেশগুলোতে ভয়াবহ ভূমিকম্প সুনামি, ব্যাপক তুষারপাত, সাইক্লোন-টর্নেডো, ব্যাপক দাবানল ইত্যাদির প্রকোপ তথা অর্থনৈতিক মন্দার ভয়াবহ গযব।
প্রসঙ্গত মহান মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, “ইহুদী-খ্রিস্টান, কাফির-মুশরিকরা যদি মুসলমানদের উপর যুলুম-অত্যাচার বন্ধ না করে তবে, তারা রাস্তার ফকির হয়ে যাবে। ডাস্টবিন থেকে খাবে। এক সময় ডাস্টবিন থেকেও খাবার পাবে না।
ডাস্টবিনের খাবার নিয়ে কুকুরের সাথে কামড়া-কামড়ি করবে। এরপরও তারা (কাফিররা) যদি মুসলমানদের উপর নির্যাতন বন্ধ না করে, তবে তারা থাকার জায়গা না পেয়ে রাস্তায় গড়াগড়ি খাবে এবং এক পর্যায়ে গড়াগড়ি খেতে খেতে স্থলভাগে স্থান না পেয়ে পানিতে নামতে বাধ্য হবে। অর্থাৎ পানিতে হাবুডুবু খেয়ে মরবে।”
প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, মুজাদ্দিদে আযম, ইমাম রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি যখন থেকেই এরকম দোয়া করছেন ও এসব ভবিষ্যদ্বাণী করছেন তখন থেকেই আমেরিকা, ইউরোপসহ জুলুমবাজ বিধর্মী বিশ্ব ধারাবাহিকভাবে অর্থনৈতিক মন্দাসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগরূপী গযবে প্রকটভাবে আক্রান্ত হচ্ছে।
দৈনিক আল ইহসান শরীফ-এ প্রকাশিত প্রতিদিনের আযাব গযবের খবর থেকে নেয়া কিছু খবর প্রকাশ করা হলো-
২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১২

শক্তিশালী বন্যায় বলিভিয়ায় জরুরী অবস্থা ॥ ১০ হাজার পরিবার গৃহহীন
প্রবল বৃষ্টিপাতের ফলে সৃষ্ট বন্যায় বলিভিয়ার অ্যামাজন রিজিওন ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারন করায় কর্তৃপক্ষ জারি করেছে জরুরী অবস্থা। কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে এই বন্যায় কয়েক ডজন লোক নিহত হয়েছে এবং গৃহহীন হয়েছে কমপক্ষে ১০ হাজার পরিবার। পার্শ্ববর্তী ব্রাজিলের অ্যামাজন রিজিওনও এই বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
স্মালেনবার্গ ভাইরাসে আক্রান্ত ইউরোপের ৭ দেশ ॥ হাজার হাজার গবাদী পশু আক্রান্ত

ইউরোপের ৭টি দেশে ভয়াবহ স্মালেনবার্গ ভাইরাসের অস্তিত্ব ধরা পরেছে। ইতিমধ্যে এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার ১২০০টি কেস পাওয়া গেছে। জার্মানির স্মালেনবার্গ শহরের নাম অনুসারে এই ভাইরাসের নামকরণ করা হয়। ভাইরাসে আক্রান্ত দেশগুলো হল- নেদারল্যান্ড, জার্মানি, বেলজিয়াম, ইতালি, ফ্রান্স, লুক্সেমবার্গ এবং ব্রিটেন। উল্লেখ্য এই ভাইরাসের আক্রমণে মা পশুটি এবং তার গর্ভের শিশুটি মারাত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে তার মস্তিস্ক এবং দৈহিক বিকলাঙ্গতা তৈরী হয়।

আর্জেন্টিনায় স্মরণকালের ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনা: নিহত ৫০, আহত ৬০০

আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েন্স আয়ার্সে স্মরণকালের ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনায় কমপক্ষে ৫০ যাত্রী নিহত ও ৬ শ’ যাত্রী আহত হয়েছে। আহতদের স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তবে, নিহতের সংখ্যা আরও অনেক বৃদ্ধির আশঙ্কা করা হচ্ছে। দেশটির ৪০ বছরের ইতিহাসে এটাই সবচেয়ে মারাত্মক ট্রেন দুর্ঘটনা। এ খবর দিয়ে অনলাইন বিবিসি জানিয়েছে, প্রায় ৮শ’ যাত্রীসহ একটি ট্রেন রাজধানীর ‘ওয়ান্স’ রেলস্টেশনের প্ল্যাটফর্মের শেষ মাথায় সজোরে ধাক্কা দিলে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর ট্রেনটির দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া বগিতে বেশ কয়েক ঘণ্টা আটকে থাকতে হয় আহত যাত্রীদের। ট্রেনটির ব্রেকে কোন ত্রুটি ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তুষারধসে ভারতীয় দখলদার ১১ সেনা নিহত ॥ নিখোঁজ ৮

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের দু’টি সেনা শিবিরে তুষারধসে অন্ততঃ ১১ জন ভারতীয় সেনা নিহত হয়েছে। এছাড়া, আট সেনা তুষারের মধ্যে আটকা পড়েছে। এ তুষারধস পাকিস্তান সীমান্তবর্তী কাশ্মিরের গানদারবাল এবং বান্দিপোরা জেলার সেনা শিবিরে আঘাত হেনেছে। আটকা পড়া সেনাদের জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হবে না বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এতে মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে।
বান্দিপোরা জেলায় সেনাবাহিনীর একটি ওয়ার্কশপে বিশালাকারের হিমবাহ বা তুষারস্তুপ আঘাত হানার পর সেখানে আট জন নিহত হয়। এছাড়া, ১৫ ভারতীয় দখলদার সেনা বরফের নিচে চাপা পড়ে। অবশ্য, পরে তাদেরকে উদ্ধারের দাবি করা হয়। সেনাবাহিনীর এক মুখপাত্র জানিয়েছে, অন্ততঃ ২১ জন সেনা তুষারস্তুপের নিচে চাপা পড়েছিল। এছাড়া, গানদারবাল জেলার সেনা শিবিরে তুষারধসের শিকার হয়ে মারা গেছে অন্ততঃ তিন সেনা। এ দু’টি দুর্ঘটনায় ঘটেছে বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবারের মধ্যে।
উল্লেখ্য, গত মাসেও কুপওয়ারা জেলায় তুষারধসে ভারতীয় আট সেনা নিহত হয়েছিল।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রশিক্ষণ হেলিকপ্টারের মধ্যে সংঘর্ষ, ৭ মেরিন নিহত

যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্যে দু’টি সামরিক প্রশিক্ষণ হেলিকপ্টারের মধ্যে সংঘর্ষে সাত মেরিন সেনা নিহত হয়েছে। দুর্ঘটনাটি ঘটেছে গত বুধবার। বৃহস্পতিবার এই খবর নিশ্চিত করেছে মার্কিন মেরিন।
মেরিন জানিয়েছে, অঐ-১ড ‘ঈড়নৎধ’ এবং টঐ-১ণ ‘ঐঁবু’ হেলিকপ্টার দুটিতে করে নিয়মিত প্রশিক্ষণ চলার সময় আকাশে তাদের সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষটি হয়েছে গত বুধবার স্থানীয় সময় সকাল ৮টার দিকে ইয়ুমা ট্রেনিং রেঞ্জের মধ্যে।
ঘটনাটি তদন্তাধীন রয়েছে বলে মার্কিন মেরিন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

প্রতিদিন চোখ রাখুন দৈনিক আল ইহসান শরীফ-এর শেষ পাতায় আর বিস্তারিত পড়ুন ৬ষ্ঠ পাতায়।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+