সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দু:খিত। ব্লগের উন্নয়নের কাজ চলছে। অতিশীঘ্রই আমরা নতুনভাবে ব্লগকে উপস্থাপন করবো। ইনশাআল্লাহ।

মুসলমানদের জন্য পবিত্র ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার রাত্রি হলো ক্ষমা ও নাজাত হাছিল করার রাত


মুসলমানদের জন্য পবিত্র ১২ রবীউল আউওয়াল শরীফ উনার রাত্রি হলো পবিত্র রজনী। এই মুবারকময় রাত্রিতে মহান আল্লাহ পাক তিনি খাছভাবে দোয়া কবুল করেন ও মানুষের গুনাখাতা ক্ষমা করে থাকেন। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করা হয়েছে, “নিশ্চয় পাঁচ রাত্রিতে খাছভাবে দোয়া কবুল হয়। ১. পবিত্র রজব উনার পহেলা রাত, ২. পবিত্র শবে বরাত, ৩. পবিত্র শবে ক্বদর, ৪. পবিত্র ঈদুল ফিতর উনার রাত্র ও ৫. পবিত্র ঈদুল আদ্বহা উনার রাত্র।” যদি এই পাঁচ রাতে খাছভাবে দোয়া কবুল হয়, তাহলে যে রাত সকল রাতের শ্রেষ্ঠ রাত, যে ঈদ সকল ঈদের শ্রেষ্ঠ ঈদ সেটা হলো পবিত্র ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম; সে রাত্রি মুবারক উনার কথা কি চিন্তা করা যায়! কাজেই নিশ্চিতভাবেই বলা যায়- মহাসম্মানিত ১২ রবীউল আউওয়াল শরীফ উনার রাত্রিতে খাছভাবে দোয়া কবুল হয়।
এজন্য এই মহান রাত্রি মুবারক-এ সময় অবহেলায় না কাটিয়ে প্রত্যেকের উচিত মহান আল্লাহ পাক উনার দিকে রুজু হয়ে ইবাদত বন্দেগীতে মশগুল থাকা। কিন্তু আফসুস! অনেকেই এই সুমহান রাত্রিতে গান শুনে, বাজনা বাজায়, বেপর্দা হয়, পটকা ফুটানোসহ নানা হারাম কাজে মশগুল থাকে। যা পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার দৃষ্টিতে কাট্টা কুফরী ও হারাম।
অতএব, সকলের জন্য উচিত- এই সুমহান রাত্রি মুবারক উনার সম্মান মর্যাদা উপলব্ধি করে মহান আল্লাহ পাক উনার নিকট ক্ষমা চাওয়া, আরজু পেশ করা, নাজাত পাওয়ার জন্য মুনাজাত করা।

-মুহম্মদ মাহদী হাসান

মহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ মাদরাসা

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

  1. ঈদ মুবারক.. ঈদ মুবারক.. ঈদ মুবারক..মুবারক হো সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে